আইপিএলের বাজি হেরে ভাগ্নেকে পৈশাচিক কায়দায় নির্যাতন (দেখুন ভিডিওতে)

আইপিএলের বাজি হেরে ভাগ্নেকে পৈশাচিক কায়দায় নির্যাতন (দেখুন ভিডিওতে)
Share Button

মামার সঙ্গে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) খেলার বাজি হেরে তার প্রতিবন্ধী ভাগ্নেকে পৈশাচিক কায়দায় নির্যাতন করেছেন চট্টগ্রামের এক মুদি দোকানদার। গত শনিবার (২৩ এপ্রিল) বিকেল চারটার দিকে হাদীপাড়া ওয়াহাব মিয়ার বাড়ির সামনে এই ঘটনাটি ঘটে।

ঘটনাসূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম মহানগরীর পতেঙ্গা থানার হাদীপাড়া এলাকায় প্রতিবন্ধী এক শিশুকে পৈশাচিক কায়দায় নির্যাতনের ভিডিওচিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে এ নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। চুরির অপরাধে জনসম্মুখে ইসহাক নামে এক যুবক মিনহাজ (১৩) নামের শিশুটিকে নির্মমভাবে পেটালেও কেউ তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে যায়নি।

ঘটনার পর পুলিশ অভিযুক্ত ব্যবসায়ী ইসহাককে গ্রেফতার করলেও এক দিনের মাথায় তিনি আদালত থেকে জামিনে বেরিয়ে গেছেন।

খবর নিয়ে জানা গেছে, নির্যাতিত শিশুটি জেলার আনোয়ারা বুরুমচড়ার মৃত সালেহ আহমদের এতিম ছেলে মিনহাজ (১৩)। কয়েকদিন আগে সে পতেঙ্গা হাদীপাড়া এলাকায় তার ফুফুর বাড়িতে বেড়াতে যায়।

স্থানীয়রা জানান, শারীরিক প্রতিবন্ধী এ শিশুটির মামা তারেকের সঙ্গে ঘটনার দুই দিন আগে আইপিএলের একটি খেলা নিয়ে স্থানীয় মুদি দোকানদার ইসহাকের ২৪ হাজার টাকার বাজি হয়। এতে ইসহাক হেরে যায়। কিন্তু ইসহাক বাজির টাকা না দিয়ে তারেককে হুমকি দেয় যে, টাকা চাইলে এলাকা ছাড়া করবো।

তারেক এরপর আর কোনো টাকা দাবি করেনি। ঘটনার দিন বিকেলে শিশু মিনহাজ ইসহাকের দোকানে গিয়ে একটি চিপস ও ইউরোকোলা কিনে ১০ টাকা দিয়ে বাকি ১৬ টাকা মামা তারেকের পাওনা টাকা থেকে কেটে নিতে বলে।

এতে ইসহাক শিশুটির উপর চড়াও হয়। তাকে ধরে ইসহাক বেদম প্রহার করে। ভিডিওতে দেখা যায়, দোকানের সামনে মাটিতে ফেলে নির্মমভাবে নির্যাতনের সময় শিশুটি বার বার তার পায়ে ধরে বাবা বাবা বলে আর্ত চিৎকার করেও রেহাই পায়নি।

এক পর্যায়ে ইসহাক পা দিয়ে শিশুটির গলা চেপে ধরে। এসময় অন্য একজন তাকে মারতে নিষেধ করতে দেখা যায়। নির্যাতনকারী ইসহাক একজন স্থানীয় যুবলীগ নেতা বলে জানা গেছে। তার বড় ভাই ফোরকানও যুবলীগের প্রভাবশালী নেতা। তিনি ঘটনার সময় সেখানে উপস্থিত থেকে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে নির্যাতনের ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে পতেঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলমগীরকে ফোন করলে রিসিভ করেন এসআই জাকির হোসেন। তিনি জানান, ওসি স্যার অসুস্থতার কারণে বাসায় বিশ্রামে আছেন।

শিশু নির্যাতনের ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে এসআই জাকির হোসেন একটা ছেলেকে চুরি করার অপরাধে মারধরের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এবং পরদিন অভিযুক্ত ইসহাককে গ্রেফতার করে। এ ব্যাপারে মারধর অপরাধে মামলা হয়েছে। আসামিকে আদালতে চালান করা হলে গতকাল সোমবার সে জামিন পেয়ে গেছে শুনেছি। এর বেশি কিছু আমি জানি না।

এদিকে স্থানীয় ৪০ নং উত্তর পতেঙ্গা ওয়ার্ড কাউন্সিলর জয়নাল আবেদীনের মোবাইলে ফোন করলে তার স্ত্রী মহিলা কাউন্সিলর শাহীনুর বেগম ফোন রিসিভ করে বলেন, তার স্বামী ঘুমাচ্ছেন। তাই এখন কথা বলা যাবে না।

তার এলাকায় শিশু নির্যাতনের কোন ঘটনা জানেন কিনা জানতে চাইলে এ নারী কাউন্সিলর জানান, আমি শুনেছি ছেলেটিকে চুরি করার কারণে চড় থাপ্পর মেরেছে।

ঘটনার ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত ইসহাকের মোবাইলে ফোন করলে তা বন্ধ পাওয়া গেছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts