কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রেমিকার পরিবার

কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা
Share Button

দুই বছর আগে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র শুভ মণ্ডলের সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীর। ব্যাপারটি জানতে পেরে শুভকে সাবধান করে দেয় মেয়ের পরিবার।

কিন্তু ‘প্রেম মানে না কোনো বাধা’। আর তাই গোপনে তাদের সম্পর্ক চলতে থাকে। এর জেরে শেষ পর্যন্ত শুভকে পিটিয়ে মেরে ফেলল মেয়ের পরিবারের সদস্যরা।

রোববার ভোরে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) থানার লক্ষ্মীপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

নিহত শুভ মণ্ডল ওই গ্রামের আরমান মণ্ডলের ছেলে। সে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবরেটরী স্কুল অ্যান্ড কলেজের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।

এ ঘটনায় নিহত শুভ মণ্ডলের দাদা আবুল হোসেন মণ্ডল বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

তবে প্রেমের সর্ম্পকের কথা অস্বীকার করেছে মেয়ের পরিবার।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, দুই বছর আগে শুভ মণ্ডলের সঙ্গে একই গ্রামের রশিদ মৃধার মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। ব্যাপারটি মেয়ের পরিবার জানতে পারলে কয়েক দফায় শুভ ও তার পরিবারকে সাবধান করে দেয়।

এরই জেরে মেয়ের বাবা ও চাচা গত ২ আগস্ট রাতে শুভকে বাড়িতে আটকিয়ে রেখে মারধর করে। পরে স্থানীয় ইউপি মেম্বর ও থানার হস্তক্ষেপে শুভকে উদ্ধার করে তার পরিবার।

গত রোববার লক্ষীপুর বাজারে অবস্থিত বাবার দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিলো শুভ। এ সময় বাড়ির সামনে থেকে মেয়ের বাবা রশিদ মৃধা, চাচা রাজ্জাক মৃধা, মিন্টু, জাহিদ মৃধা ও উথান মৃধা লাঠি ও টর্চ লাইট দিয়ে শুভকে পিটিয়ে জখম করে রাস্তায় ফেলে রাখে।

স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে শুভর মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম বলেন, প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে মেয়ের পরিবার ওই কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts