কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় দুই সহপাঠীর কাণ্ড!

pirojpur
Share Button
কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এক স্কুলছাত্রীকে ব্লেড দিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করেছে তারই এক সহপাঠী কিশোর।

শুক্রবার সন্ধ্যায় পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার আন্ধারমানিক গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

আহত হিরা মনি চলমান জেএসসি পরীক্ষার্থী। গত তিনদিন ধরে সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকলেও বিশেষ ব্যবস্থায় পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে।

এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে শনিবার রাতে মিঠু মিস্ত্রী (১৪) ও তার সহযোগী শাহাদাৎ হোসেন (২৫) নামের দুই বখাটের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

শনিবার রাতেই অভিযান চালিয়ে মিঠু মিস্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আন্ধারমানিক গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা ও পৌর শহরের এক পান বিক্রেতার ৮ম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়েকে একই এলাকার মনোরঞ্জন মিস্ত্রীর ছেলে মিঠু মিস্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিল।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রীর মা পৌর শহরে দোকানে থাকায় স্কুলছাত্রী একাকী ঘরে বসে পড়ছিল। এসময় ওই মিঠু মিস্ত্রী তার সহযোগী শাহাদাৎ হোসেনকে নিয়ে ছাত্রীর ঘরে ঢুকে ফের কুপ্রস্তাব দেয়।

এতে রাজি না হওয়ায় মিঠু মিস্ত্রী তাকে জোরপূর্বক জাপটে ধরে শ্লীলতাহানীর চেষ্টা চালায়। ওই স্কুলছাত্রী চিৎকার দিলে মিঠু মিস্ত্রী ব্লেড দিয়ে তার ঘাড়ে ও হাতে এলোপাতাড়ি পোচ দিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আহত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, কিশোর মিঠু মিস্ত্রীকে গ্রেফতার করে রোববার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। ওই কিশোর অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত তাকে যশোর কিশোর সংশোধনাগারে পাঠিয়েছেন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts