টাঙ্গাইলের সখীপুরে অপহরণের পর স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

Rape logo 1
Share Button

টাঙ্গাইলের সখীপুরে পঞ্চম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার সকালে মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার উপজেলার মোচারিয়া পাথার আতিয়াপাড়া হোসেন মার্কেট এলাকা থেকে ওই ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়।

এ ঘটনায় অপহৃতার বাবা একইদিন সন্ধ্যায় অপহরণকারী অটোচালক ফরিদ আহমেদ মুন্নাকে একমাত্র আসামি করে সখীপুর থানায় নারী শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন।

পরে রাতেই পুলিশ সখীপুর পৌরসভার একটি বাসা থেকে অপহৃতা স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার ও অপহরণকারী মুন্নাকে গ্রেফতার করেছে।

ধর্ষক ফরিদ আহমেদ মুন্না সখীপুর পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আবদুল লতিফের ছেলে।

মামলা ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন বিকালে আতিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ওই ছাত্রী বাড়ি ফিরছিল। পথে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা ফরিদ আহমেদ মুন্না ও তার সহযোগীরা ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে।

পরে তাকে সখীপুর পৌরসভায় তার এক আত্মীয়ের বাসায় নিয়ে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করে।

সখীপুর থানার ওসি মাকছুদুল আলম বলেন, সন্ধ্যায় এ ঘটনায় মেয়ের বাবা বাদী হয়ে মামলা করলে ওই রাতেই অপহৃতাকে উদ্ধার এবং অপহরণকারী মুন্নাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে মুন্নাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts