পিরোজপুরে প্রেমে রাজি না হওয়ায় কলেজ ছাত্রীকে ছুরিকাঘাত

ছুরিকাঘাত
Share Button

ছুরিকাঘাতে পিরোজপুর জেলার সদর উপজেলার তেজদাসকাঠী কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্রী আমিনা রহমান আঁখি জখম হয়েছেন। আহত অবস্থায় তাকে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রোববার বিকালে সদর উপজেলার তেজদাসকাঠীতে এ ঘটনা ঘটে।

রাতে হাসপাতালের বেডে আহত ছাত্রী আমিনা রহমান আঁখি সাংবাদিকদের কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানায়, কলেজ ছুটির পর বিকাল ৩ টার দিকে বাড়ি ফেরার পথে চলিশা বাজারের কাছে তিন জন দুর্বৃত্ত মোটর সাইকেলে এসে তার পথ রোধ করে।

কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই হেলমেট পড়া দুই দুর্বৃত্ত তার দুই হাত ধরে পিছমোড়া করে রাখে। এ সময় তার সাথে ধস্তাধস্তি হয়। তারা তাকে চড়-থাপ্পর মারতে থাকে ও এক পর্যায়ে তারা ছুরি দিয়ে আঘাত করলে আঁখি হাত দিয়ে বাধা দিলে তার হাতে ছুড়ির কোপ লাগে। এ সময় চিৎকার দিলে দুর্বৃত্তরা মোটর সাইকেলে পালিয়ে যায়। তবে মাথায় হেলমেট থাকার কারনে আখি কাউকে চিনতে পারেনি বলে জানায়।

হাসপাতালে কলেজ ছাত্রী আঁখির পিতা আনিসুর রহমান জানান, তেজদাসকাঠী এলাকার আঃ জলিল মোল্লার ছেলে স্বজল মোল্লা অনেকদিন ধরে তার মেয়েকে উত্যক্ত করে আসছিল। তিনি দাবি করেন, স্বজলই তার লোকজন দিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে।
তারা থানায় গিয়ে মামলা দিতে চাইলে পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে অপরাগতা জানায়।
রাতে কয়েকটি টিভি চ্যানেলের স্ক্রলে ঘটনাটির প্রকাশ হলে পুলিশ হাসপাতাল থেকে তাকে থানায় ডেকে আনে। পরে তেজদাসকাঠী এলাকার আ. জলিল মোল্লার ছেলে স্বজল মোল্লার নামসহ অজ্ঞাত ২ জনকে আসামী করে একটি মামলা পুলিশ গ্রহণ করেছে বলে জানান আখির পিতা আনিসুর রহমান।

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাসুমুর রহমান বিশ্বাস জানান, খবর জেনে সাথে সাথে তিনি এস আই বিপ্লবকে ঘটনাস্থলে পাঠান এবং আশপাশে খোজ নিয়ে ঘটনার কোন সঠিক তথ্য পাওয়া যাচ্ছিলনা বলে মামলা নিতে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts