বোরকা পরে ঘরে ঢুকে কিশোরীকে গণধর্ষণ

Rape logo 1

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানায় বোরকা পরে ঘরে ঢুকে এক কিশোরীকে গণধর্ষণ করেছে দুর্বৃত্তরা।

বৃহস্পতিবার রাতে থানার চরকলমি গ্রামে নিজের বাড়িতে ওই কিশোরী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে।

গুরুতর অবস্থায় তাকে চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আরও সংকটাপন্ন হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ হেফাজতে ওই কিশোরীকে ভোলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে খলিল, আবুল হোসেন, কালাম নামে তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। আটকৃতরা সবাই একই গ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

কিশেরীর মা বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার স্বামী বাজারে যাওয়ার পরে ঘরে তার তার বাকপ্রতিবন্ধী মেয়েসহ ওই কিশোরীকে রেখে তিনি পান আনার জন্য পাশের বাড়ি যান। কিছুক্ষণ পরে বাকপ্রতিবন্ধী মেয়েটিও তার পেছনে পেছনে ওই বাড়িতে যায়। ঘরে তখন তার কিশোরী মেয়েটি একাই ছিল।

তিনি বলেন, ‘ঘণ্টাখানেক পরে ফিরে এসে দেখি আমার মেয়ে ঘরের মেঝেতে পড়ে আছে। জানাতে চাইলে সে আমাকে জানায়- একজন লোক বোরকা পরে ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করে। এর পর আর কিছু মনে নেই।’

এদিকে মেয়েটি একজনের কথা বললেও চিকিৎসকরা বলছেন কয়েকজন মিলে মেয়েটিকে ধর্ষণ করেছে। তাদের ধারণা, প্রথমে একজন মেয়েটিকে ধর্ষণ করলে সে অচেতন হয়ে পড়ে। এর পর কয়েকজন তাকে ধর্ষণ করে।

চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘আলামত দেখে বোঝা যায়- মেয়েটিকে কয়েকজন মিলে ধর্ষণ করেছে।’

দক্ষিণ আইচা থানার ওসি হানিফ সিকদার বলেন, সন্দেহভাজন তিনজনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারে তৎপরতা অব্যহত আছে।

তিনি বলেন, মেয়েটি গুরুতর অসুস্থ থাকায় তার কাছ থেকে পুরো বিষয়টি জানা যায়নি। ফলে মামলা দায়েরে বিলম্ব হয়েছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts