রংপুরে শাশুড়ির আগুনে দগ্ধ তাহমিনার মৃত্যু

অগ্নিদগ্ধ
Share Button

রংপুর জেলার পীরগাছায় পারিবারিক কলহের জের ধরে শাশুড়ির দেয়া আগুনে দগ্ধ গৃহবধূ তাহমিনা তিনদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে মারা গেলেন।

সোমবার সকালে রংপুর থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পথে মারা যান তিনি।

রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনচার্জ ডা. মারুফুল ইসলাম মারুফ জানান, তাহমিনার শরীরের ৩৫ ভাগ অংশ পুড়ে গেছে এবং দগ্ধ বুক, হাত ও মুখের অংশটুকু খুবই ডিপ। আমরা তাকে বাঁচাতে চেষ্টা করেছি। কিন্তু রোগীর অবস্থা ভালো না থাকায় তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু সোমবার ভোরে মারা গেছেন তহমিনা।

রংপুর এএসপি (বি সার্কেল) সাইফুর রহমান সাইফ জানান, সকালে গৃহবধূ তাহমিনার মৃত্যু খবর পেয়েছি।

গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পারিবারিক বিষয় নিয়ে মা আলেমা বেগমের সঙ্গে ছেলে মান্নানের বাকবিতণ্ডা হয়। এসময় স্বামীর পক্ষ নিয়ে তহমিনা কথা বলতে গেলে আলেমা বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। একপর্যায়ে তহমিনার গায়ে কেরোসিন ঢেলে কুপির আগুন দিয়ে শরীর ঝলসে দেন শাশুড়ি। এতে তহমিনার শরীরের অনেকটাই পুড়ে যায়।এসময় প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে তাকে প্রথমে পীরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে রংপুর মেডিকেলে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় হাসপাতাল থেকেই স্বামী মান্নানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment