ইয়াবার বিনিময়ে গাড়ি!

Share Button

ঢাকা থেকে চোরাই হওয়া ৭টি গাড়ি টেকনাফ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় আটক করা হয়েছে চোরাই গাড়ি সিন্ডেকেটের অন্যতম সদস্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী মেহেদী হাসানকে।

বুধবার (৮ জুন) দিনভর উপজেলার বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে টেকনাফের থানা পুলিশের সহযোগিতায় এসব গাড়ি উদ্ধার করে পুলিশের বিশেষ টিম। আটক মেহেদী উপজেলার নাইট্যং পাড়ার আবদুল গফুরের ছেলে।

উদ্ধার গাড়ির মধ্যে রয়েছে ৫টি মাইক্রোবাস ও ২টি প্রাইভেট কার। এগুলো মধ্যে ৩টি মাইক্রো পাওয়া যায় মেহেদীর কাছে। বাকি গাড়ি গুলো জালিয়াপাড়ার মোহাম্মদ জুবাইরের কাছে ১টি মাইক্রোবাস, বড় হাবির পাড়ার ছৈয়দ আহমদের কাছে ১টি মাইক্রোবাস, মোহাম্মদ ইউনুছের কাছে ১টি কার, মোহাম্মদ আলীর কাছে পাওয়া যায় ১টি কার। তারা সবাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী।

এবিষয়ে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল মজিদ অভিযানে সত্যতা স্বীকার করে জানান, ঢাকার বিশেষ দলটি নির্দিষ্ট মামলার প্রেক্ষিতে টেকনাফে এ অভিযান চালায়। এতে উদ্ধার হওয়া গাড়ি এবং আটক ব্যক্তিকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

অভিযানের একজন সদস্য জানিয়েছে, কক্সবাজারের টেকনাফের চিহ্নিত ইয়াবা গডফাদাররা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে চোরাই গাড়ি নিয়ে থাকে। এর বিনিময়ে তারা ইয়াবা সরবরাহ করে আসছে। এসব গাড়ির বাইরে আরো অনেক গাড়ি ও মোটরসাইকেল রয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts