চাকরি দেয়ার জন্য ডেকে এনে কিশোরীকে গণধর্ষণ

Rape logo 1
Share Button

গাজীপুরের শ্রীপুরে চাকরি নিতে এসে এক কিশোরী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার বিকালে সাতখামাইর এলাকার ডাকাইত ভিটার শালবনে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্তরা হলেন- শ্রীপুরের বরমী ইউনিয়নের ডালেশ্বর গ্রামের গেন্দু মিয়ার ছেলে রাশেদুল ইসলাম (২১), তার বন্ধু হাসেম খা’র ছেলে সেলিম মিয়া (২৩) ও লাল মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম (২২)।

ওই কিশোরী ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার বাসিন্দা।

জানা গেছে, অভিযুক্তদের একজন সেলিম ওই কিশোরীকে কয়েক সপ্তাহ যাবৎ মোবাইল ফোনে চাকরির প্রলোভন দিয়ে আসছিল। সেই প্রলোভনে শনিবার দুপুরে কিশোরী তার এক বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে গফরগাঁও থেকে ডেমু ট্রেনে শ্রীপুর রেলস্টেশনে এসে নামে। সেখানে অপেক্ষমাণ সেলিমের বন্ধুরা কিশোরী দু’জনকে কর্মস্থলে যাওয়ার কথা বলে সিএনজিতে উঠায়। সেখান থেকে সাতখামাইরের ডাকাইত ভিটার গজারী বনে নিয়ে দু’জনকেই ধর্ষণের চেষ্টা করে।

এ সময় একজন কিশোরী দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে ওই তিন যুবক অপর কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পালিয়ে আসা কিশোরী আশপাশের লোকদের এ ঘটনা জানায়। পরে স্থানীয়রা ওই কিশোরীকে অভিযুক্তদের কাছ থেকে উদ্ধার করে। এসময় যুবকরা স্থানীয়দের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়।

শ্রীপুর মডেল মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. শহিদুল ইসলাম মোল্লা জানান, খবর পেয়ে তিনি ওই দুই কিশোরীকে উদ্ধার করেন শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

শ্রীপুর মডেল থানার ওসি আসাদুজ্জামান জানান, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, দু’নারীর মধ্যে একজন ধর্ষিত হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts