টাঙ্গাইলে নিখিল খুনের আসল রহস্য!

nikhil
Share Button

টাঙ্গাইলে হিন্দু ব্যবসায়ী খুনের মূল রহস্য উদঘাটনে পুলিশ আরও একজনকে আটক করেছে। মঙ্গলবার ভোর রাতে ঢাকার উত্তরা থেকে নিহত নিখিলের নিখিলের ভাতিজীর সাবেক স্বামী রুদ্রকে আটক করা হয়।

এর আগে জামায়াত ও বিএনপির তিন নেতাকর্মীকে আটক করে রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার ডুবাইল বাজার এলাকায় দর্জি নিখিল চন্দ্র জোয়ারদার হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গৌতম রুদ্র নামে আরো একজনকে আটক করেছে টাঙ্গাইলের গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

আটক রুদ্র নিহত নিখিলের ভাতিজীর সাবেক স্বামী বলে জানিয়েছেন টাঙ্গাইল গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ওসি গোলাম মাহফীজুর রহমান।

ওসি জানান, নিহত নিখিলের ভাতিজী স্বর্ণাকে গত ২ বছর আগে বিয়ে করেন গৌতম রুদ্র। বিয়ের এক বছরের মাথায় রুদ্র ও স্বর্ণার বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। বিচ্ছেদের পর থেকেই রুদ্র চাচা শ্বশুর নিখিল চন্দ্র জোয়ারদারকে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়ে আসছিলেন। এ হত্যাকাণ্ডে রুদ্র জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে সকাল থেকে এ ব্যাপারে রুদ্রকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে বলে জানান ওসি গোলাম মাহফীজুর।

উল্লেখ্য, ৩০ এপ্রিল শনিবার দুপুরে নিখিল চন্দ্র জোয়ারদার তার নিজ দোকানে দর্জির কাজ করছিলেন। এ সময় একটি মোটরসাইকেলে তিনজন যুবক এসে তাকে দোকান থেকে টেনে বের করে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা একটি ব্যাগ ফেলে যায়।

পরে ওই ব্যাগ থেকে চারটি ককটেল উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ইতোমধ্যে গোপালপুর পৌর জামায়েতের সেক্রেটারি বাদশা, আলমনগর দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম ও স্থানীয় বিএনপিকর্মী ঝন্টুকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। তারা পৃথক দুটি মামলায় ৬ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts