ধর্ষণ চেষ্টাকালে আওয়ামী লীগ সমর্থকের গোপনাঙ্গ কর্তন

rape_logo

আত্মীয়তার সূত্রে বাড়িতে বেড়াতে আসা অন্যের স্ত্রীকে গভীর রাতে ধর্ষণ চেষ্টাকালে বড় রকমের শাস্তি পেতে হয়েছে এক আওয়ামী লীগ সমর্থককে। হারাতে হয়েছে তার গোপনাঙ্গ। ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার ভোরে জেলার চাটমোহর উপজেলার চরনবীন গ্রামে।

ঘটনাটি বিব্রতকর আর লজ্জাজনক হওয়ায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা দিনভর চেষ্টা চালান ধামাচাপা দেয়ার। তবে শেষ অবধি চেষ্টা সফল হয়নি। জেনে গেছেন সংবাদকর্মীরা।

অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ সমর্থকের নাম জাইদুল ইসলাম (৩৫)। তিনি উপজেলার হান্ডিয়াল ইউনিয়নের চরনবীন গ্রামের মৃত ছামাদ ফকিরের ছেলে। তিনি একজন শ্রমিক সরদার।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন হান্ডিয়াল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা রবিউল ইসলাম।

এলাকাবাসী জানায়, আত্মীয়তার সূত্রে জাইদুল ইসলামের বাড়িতে মঙ্গলবার গুনাইগাছার নতুনপাড়া গ্রামের জনৈক ব্যক্তির স্ত্রী দুই সন্তানের জননী (২৫) বেড়াতে আসেন। রাত যাপন করার এক পর্যায়ে বুধবার ভোরে জাইদুল ওই গৃহবধূর ঘরে ঢুকে তার সঙ্গে শারিরীক সম্পর্কের চেষ্টা করে। এসময় ওই গৃহবধূ বাধা দেয়ার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা চালায়। নিরূপায় হয়ে এক পর্যায়ে ব্লেড দিয়ে জাইদুলের গোপনাঙ্গ কেটে ফেলে।

স্বজনরা গুরুতর আহতাবস্থায় চিকিৎসার জন্য জাইদুলকে গোপনে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করায়।

ঘটনা ব্যাপারে চরনবীন গ্রামের বাসিন্দা স্থানীয় আওয়ামীলীগ কর্মী আসাদ বলেন, ‘বিষয়টি বিব্রতকর আর লজ্জাজনক হওয়ায় দিনভর আমরা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছি।’ লিঙ্গ কর্তনের শিকার যুবক আওয়ামী লীগের সমর্থক ও শ্রমিক সরদার বলেও তিনি নিশ্চিত করেন।

হান্ডিয়াল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনাটি শুনেছি। তাকে চিকিৎসার জন্য রামেকে পাঠানো হয়েছে।’

চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার জানান, এ ব্যাপারে এখনও কিছু জানিনা। থানায় কোনো অভিযোগও আসেনি।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment