বনানীতে দুই তরুনী ধর্ষিত : হোয়াটসঅ্যাপ-ভাইবারে সক্রিয় আসামিরা

Share Button

ধর্ষণ মামলার দুই আসামি নাঈম আশরাফ ও সাফাত আহমেদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ থাকলেও তারা ভাইবার-হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। সাদনান সাকিফের ফেসবুক আইডি সম্পর্কে জানা যায়নি। তবে সেও হোয়াটসঅ্যাপে সচল রয়েছে। সোমবার তাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে গিয়ে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

তবে নাঈম আশরাফের প্রতিষ্ঠান ই-মেকার্স বাংলাদেশের ফেসবুক পেজটি এখনও খোলা রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধারণা, গ্রেফতার এড়াতে তারা মোবাইল ফোন ব্যবহার বন্ধ রেখেছে। ওয়াইফাই দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যোগাযোগ করছে।

দুই তরুনীর অভিযোগ, ২৮ মার্চ বন্ধু সাদনান সাকিফের প্ররোচনায় জন্মদিনের পার্টিতে গিয়ে ধর্ষিত হন। ওই রাতে বনানীর দি রেইনট্রি হোটেলে তারা ধর্ষণের শিকার হন। আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাত আহমেদ ও নাঈম আশরাফ নামে দু’জন তাদের সারা রাত হোটেলের দুটি কক্ষে অস্ত্রের মুখে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। সেই ঘটনার ভিডিও ধারণ করেছে ধর্ষকরা। এখন ওই ভিডিও প্রকাশসহ তাদের খুন-গুম করার হুমকি দিচ্ছে। একই সঙ্গে সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য নানাভাবে চেষ্টা চালাচ্ছে ধর্ষকরা।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts