সাজেশনের প্রলোভনে ছাত্রীকে ধর্ষণ করলো শিক্ষক, ভিডিও ধারণ

girl raped with teacher
Share Button

সুন্দরগঞ্জে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে শ্রেণিকক্ষে এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পরে ওই ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এঘটনার সঙ্গে জড়িত বিদ্যালয়ের কম্পিউটার শিক্ষক এএফএম সাজ্জাদুল করিম টিপুকে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার রাতে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা দায়েরের পরেই ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ ও ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, চন্ডিপুর এটিএন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের কম্পিউটার শিক্ষক টিপু ওই স্কুলের ৯ম শ্রেণির ছাত্রীকে সাজেশন দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিদ্যালয়ের শ্রেনিকক্ষে ধর্ষণ করে। ওই শিক্ষক গোপনে ধর্ষণের চিত্র মোবাইল ফোনে ধারণ করে রাখে। পরে ওই ছবি ছাত্রীটিকে দেখিয়ে ইন্টারনেটে তা ছেড়ে দেয়ার কথা বলে বিভিন্ন সময়ে তাকে ধর্ষণ করে।

একপর্যায়ে অতিষ্ট হয়ে ওই ছাত্রী শিক্ষকের অপকর্মের বিষয়টি তার বাবা-মাকে জানায়। এজন্য ছাত্রীর বাবা বিদ্যালয় থেকে মেয়েটির ছাড়পত্র নিয়ে তাকে অন্য স্কুলে ভর্তি করান। পরে তিনি ২৯ নভেম্বর বিদ্যালয়ের সভাপতি এবং প্রধান শিক্ষকের কাছে শিক্ষক সাজ্জাদুল করিমের বিরুদ্ধে তার মেয়েকে যৌন হয়রানীর বিচার চেয়ে লিখিত আবেদন করেন।

রোববার এলাকাবাসী ওই শিক্ষকের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে বিদ্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করে শ্রেণিকক্ষে তালা লাগিয়ে দেয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর বাজ্জাক জানান ,আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই শিক্ষককে কারণ দর্শানের নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া মামলা হওয়ায় বিধিমোতাবেক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts