স্বামীর ডাকে নববধূর সাড়া, অতঃপর ধর্ষনের শিকার

rape_logo

স্বামী ডেকেছিল বলেই না নববধূ রাত মানেনি। তাড়াহুড়ো করে রওনা হয়েছিলেন প্রিয়জনের কাছে। কিন্তু একি হলো? সব কিছু যে শেষ হয়ে গেল!

ঘটনাটি গত ১৭ মার্চ রাত সাড়ে ৯টার দিকের। গাইবান্ধা জেলা সদরের দাড়িয়াপুর কুমারপাড়ার।

ঢাকায় কর্মরত স্বামীর ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে নববধূ পড়েন দুর্বৃত্তদের কবলে। পথিমধ্যে নববধূর পথ আটকে নিয়ে যাওয়া হয় পাশের বিলের মধ্যে। এরপর কয়েকজন বখাটে মিলে সারারাত পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

শুধু কি তাই? বখাটেরা ‘দয়া’ করে ধর্ষিতাকে স্থানীয় যে ব্যক্তির বাড়িতে রেখে যায় সে ব্যক্তিও তাকে কয়েকবার ধর্ষণ করেন।

নববধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ রোববার দুপুরে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে। এরা হলেন- জেলা সদরের খোলাহাটি ইউনিয়নের বাড়াইপাড়া গ্রামের খয়বর আলীর ছেলে মানিক মিয়া (২৭) ও একই গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন (৩০)।

স্থানীয় সূত্রমতে, গত ১৭ মার্চ গাইবান্ধা সদরের খোদ্দ মালিবাড়ী গ্রামে ফুফাতো বানের বাড়িতে বিয়ের দাওয়াত খেতে যান ওই নববধূ। ঢাকার পোশাক কারখানায় কর্মরত তার স্বামী তখন তাকে ফোন দেন। তাৎক্ষণিকভাবে ঢাকায় যেতে বলেন।

স্বামীর কথামতো রাত নয়টার দিকে খোদ্দমালিবাড়ী থেকে সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে গাইবান্ধা জেলা সদরের দিকে রওনা দেন নববধূ।

পথিমধ্যে দাড়িয়াপুর কুমারপাড়ায় পৌঁছিলে মানিক মিয়াসহ চারজন বখাটে তাকে জোর করে ষোলাগাড়ী বিলের মধ্যে এনে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। প

রে মেয়েটিকে স্থানীয় আলমগীর হোসেনের বাড়িতে রাখা হলে তিনিও তাকে ধর্ষণ করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান জানান, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা নেয়া হয়েছে।

এরপর থেকে আসামিরা আত্মগোপনে ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment