পদত্যাগের পর ‘পদ’ ফেরত চান ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহিনুর রহমান

Sahinur Rahman
Share Button

পদত্যাগ করার ১৮ দিনের মাথায় ফের আগের পদ ফেরত চেয়ে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্যের কাছে আবেদন করেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহিনুর রহমান।

গত ১০ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দ্বিতীয় পদস্থ এ কর্মকর্তা ‘ব্যক্তিগত’ কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেছিলেন। এর তিন সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে নিজের ত্যাগ করা সেই পদ পুনরুদ্ধারে রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করলেন।

রাষ্ট্রপতি বরাবর পাঠানো সেই চিঠির ‘মাধ্যম’ উল্লেখ করা হয়েছে শিক্ষা সচিবকে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

‘একান্ত ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে গত ১০ জানুয়ারি ২০১৬ ইং তারিখে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্যের পদ থেকে পদত্যাগ করতে আবেদন করেছিলাম। অদ্য ২৮ জানুয়ারি ২০১৬ ইং তারিখে উক্ত পদত্যাগ পত্রটি প্রত্যাহার করলাম।’ আবেদনে উল্লেখ করেন পদফেরত প্রার্থী শাহিনুর রহমান।

আবেদনের অনুলিপি শিক্ষামন্ত্রী, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও ইংরেজি বিভাগের সভাপতি বরাবর পাঠানো হয়েছে।

আবেদনের বিষয়টি অবহিত হয়ে ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, এই বিষয়ে কি সিদ্ধান্ত হতে পারে আমার জানা নেই। কারণ পদত্যাগের বিষয়গুলো আমাদের জানানো হয়। কিন্তু, কোন প্রক্রিয়ায় কি হয় সেটা আমার জানা নেই’।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পদত্যাগ করার কিছুদিন আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি তদন্তদল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিয়মের তদন্ত করে আসে। তদন্তে নিজে দোষী প্রমাণিত হয়ে বাদ পড়ার আগেই ‘ব্যক্তিগত’ কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেন।

অবশ্য সেই তদন্ত দলের প্রতিবেদন এখনও প্রকাশ করা হয়নি। তবে, গণমাধ্যমে উপ-উপাচার্যের নানান অনিয়ম নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রটির দাবি, ক্ষমতাসীন দলের একজন শক্তিশালী নেতার (যার বাড়ি ওই এলাকায়) পরিচয় দেখিয়ে দাপট দেখানো এই উপ-উপাচার্য নিজের দুর্বলতা ঢাকার ব্যবস্থা করতেই পদত্যাগপত্র প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছেন।

জানতে চাইলে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. অলি উল্লাহ দ্য রিপোর্টকে বলেন, তাঁর আবেদন বিবেচনার দায়িত্ব সরকারের বা মহামান্য রাষ্ট্রপতির। সাধারণত কোনো ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ব্যক্তি নিজের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহারের আবেদন জানান না।

এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপ-উপাচার্যের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন অভিযোগ জমা রয়েছে। পদত্যাগের আঠারো দিনের মধ্যে কেন তিনি আবারও স্বপদে থাকতে চাইছেন তার কারণ অনুসন্ধান করার পর মন্ত্রণালয় তার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার প্রত্যাশী উপ-উপাচার্য মো. শাহিনুর রহমানের মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ থাকায় চেষ্টা করা হলে তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। এসএমএস পাঠালেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

 

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment