দীপিকা পাড়ুকোন ‘ভারতীয়’ই নন! বলেন কী?

Deepika Padukone is not indian
Share Button

দীপিকা পাড়ুকোনের নামের সঙ্গে জড়িয়ে আছে ভারতের অন্যতম এক কিংবদন্তি ক্রীড়াবিদের নাম। যাঁর বাবা এতটা বিশ্বখ্যাত ক্রীড়াবিদ তাঁর মেয়ে হয়ে গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডে কী করছে? এই নিয়েও একটা সময় ভাল লেখালেখি হয়েছিল।

প্রকাশ পাড়ুকোন এখনও পর্যন্ত বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাডমিন্টন প্লেয়ার বলেই উল্লেখিত হন। একটা সময় তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী প্লেয়ার এবং বন্ধু বিশ্ব ব্যাডমিন্টনের অন্যতম প্রবাদ পুরুষ মর্টেন ফ্রস্ট তাঁর দেশ ডেনমার্কের বাসিন্দা হতে প্রকাশকে পরামর্শ দিয়েছিলেন। কারণ, ফ্রস্টের ধারণা ছিল, ভারতের মতো দেশে প্রকাশের ব্যাডমিন্টন প্রতিভার কদর হবে না।

কিন্তু, বিশ্বজুড়ে তাঁর নামের সঙ্গে ভারত শব্দটা উচ্চারণে গর্ব অনুভব করতে প্রকাশ। তাই কখনওই দেশ ছাড়া পরিকল্পনা করেননি তিনি। কিন্তু, তার মেয়ের নাগরিকত্ব নিয়ে একটা সময় ধোঁয়াশা ছিল। কারণ, প্রকাশের বড় মেয়ে দীপিকা পাড়ুকোন দ্বিনাগরিকত্বের অধিকারী ছিলেন।

দীপিকা যখন জন্মেছিলেন তখন প্রকাশ স্ত্রীকে নিয়ে ছিলেন ডেনমার্কে। সেখানকার কোপেনহেগেন শহরে ১৯৮৬ সালের, ৫ জানুয়ারি জন্ম হয়েছিল দীপিকা পাড়ুকোনের।
জন্মসূত্রে তাই আঠারো বছর পর্যন্ত দীপিকা ছিলেন ডেনমার্কের নাগরিক। আর রক্তের সম্পর্কে ভারতের নাগরিকত্ব তো ছিলই। পরে তিনি ডেনমার্কের নাগরিকত্ব ছেড়ে দিয়ে পাকাপাকি ভারতের নাগরিকই হয়ে যান। অনেকেই দীপিকার ডেনমার্কের জন্মকাহিনি শুনে তাই তাঁকে বিদেশিনী বলে বোধ করেন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts