প্রেমের টানে বরিশালে অস্ট্রেলিয়ান সুন্দরী নারী

প্রেমের টানে বরিশালে অস্ট্রেলিয়ান সুন্দরী
Share Button

অস্ট্রেলিয়া থেকে প্রেমের টানে বাংলাদেশের বরিশালে এসেছেন অস্ট্রেলিয়ান সুন্দরী। উচ্চ শিক্ষিত যুবক কাইয়ুম আহম্মেদকে বিয়েও করেছেন। তার নাম হাফিজা আহম্মেদ ফ্যালেসিয়া। নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড সিটির বাসিন্দা সে।

শনিবার রাতে নগরীর অভিজাত বরিশাল ক্লাব লিমিটেডের হলরুমে মহাধুমধামে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। এদিন রাতে বিবাহত্তোর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এক হাজার অতিথিকে আপ্যায়িত করা হয়।

গত ২৩ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে দুই পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে ১০ হাজার এক ডলার দেনমোহরে ইসলাম ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী কাইয়ুম ও ফ্যালেসিয়ার আকদ সম্পন্ন হয়। আকদের আগে ক্যাথলিক ধর্মাবলম্বী সামান্থা ফ্যালেসিয়া ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং তার নতুন নাম রাখা হয় হাফিজা আহম্মেদ ফ্যালেসিয়া।

বরিশাল নগরীর দক্ষিণ আলেকান্দা আলতাফ স্কুল রোডের মৃত আলহাজ আহম্মেদ আলী হাওলাদার ও মোছা. ফিরোজা বেগম দম্পত্তির ৬ ছেলে-মেয়ের মধ্যে পঞ্চম কাইয়ুম। ২০০৫ সালে উচ্চ শিক্ষার জন্য তিনি অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি দেন। সেখানকার ইউনিভার্সিটি অব বালারাত থেকে প্রফেশনাল একাউন্টিং বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সম্পন্ন করে গত ৬ বছর মেলবোর্নের হ্যালো ওয়ার্ল্ড লিমিটেড কোম্পানিতে একাউন্টস টিম লিডার পদে চাকরি করছেন কাইয়ুম।

অপরদিকে নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড সিটির রুবেন ড্যান ও প্রয়াত ট্যান ইন ডিয়ক দম্পত্তির ৪ সন্তানের মধ্যে সবার ছোট ফ্যালেসিয়া অকল্যান্ডের গ্লেন ফিল্ড কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর উচ্চ শিক্ষার জন্য যান প্রতিবেশী দেশ অস্ট্রেলিয়ায়। সেখানে একটি প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া শেষে গত ৩ বছর আগে চাকরি নেন মেলবোর্নের হ্যালো ওয়ার্ল্ড লিমিটেড কোম্পানির প্রকিউরমেন্ট কো-অর্ডিনেটর হিসেবে। একই প্রতিষ্ঠানে চাকরির সুবাদে কাইয়ুম ও ফ্যালেসিয়ার মধ্যে পরিচয় এবং জানা শোনা হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে ঘনিষ্টতা বাড়ে।

ধীরে ধীরে মেলবোর্নে অন্যান্য বাংলাদেশি বিশেষ করে কাইয়ুমের ঘনিষ্ট বরিশালের অনেকের সাথে পরিচয় হয় ফ্যালেসি।

 

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts