বয়স মাত্র ১৮ মাস, ওজন ২২ কেজি!

১৮ মাসের শিশুর ওজন ২২ কেজি!

বয়স মাত্র ১৮ মাস, এখনই ওই শিশুর ওজন ২২ কেজি! জন্মের পর থেকেই শিশুটির ছিল বেজায় খিদে। কোনোভাবেই খাওয়া থামাতে পারতো না শিশুটি। খাবার না পেলেই শুরু হতো চেঁচানো কান্না। তাই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছিল ওজন। অতিরিক্ত ওজনের জন্য সে না পারে চলতে, না পারে বসতে।

শ্রীজিত হিঙ্গানকর নামে ওই শিশুটি ভারতের পুণের বাসিন্দা। তার মা রুপালি জানিয়েছেন, জন্মের সময় তার ওজন ছিল মাত্র আড়াই কেজি। ৬ মাস বয়সে তার ওজন বেড়ে হয় ৪ কেজি। এরপরই অস্বাভাবিকভাবে ওজন বাড়তে থাকে। ১০ মাসেই ওজন হয়ে যায় ১৭ কেজি। আর এখন অর্থাৎ দেড় বছর বয়সে ২২ কেজি।

শুধু অত্যধিক খাওয়া ছাড়া আর কোনো লক্ষণ না থাকায় প্রথম দিকে বিষয়টির মধ্যে কোনো অস্বাভাবিকতা চোখে পড়েনি বাবা-মার। সমস্যা ছিল একটাই, বয়সের সঙ্গে ওজনের সামঞ্জস্য না থাকায় এক বছর বয়সেও সে বসতে পারতো না। তাই চিন্তিত বাবা-মা শ্রীজিতকে নিয়ে দ্বারস্থ হন চিকিৎসকের।

শ্রীজিতের চিকিৎসা করছেন অভিষেক কুলকার্নি। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তিনি জানিয়েছেন, লেপটিন নামে একটি হরমোনের অভাব রয়েছে শ্রীজিতের। ফলে তার মস্তিষ্ক বুঝতে পারছে না কখন পাকস্থলি ভর্তি হয়ে গিয়েছে এবং খাওয়া থামানো উচিত। এই চিকিৎসা ভারতে সম্ভব নয়। ব্রিটেন থেকে ওষুধ আনাতে হবে। ঠিকমতো চিকিৎসা না হলে শিশুটির সমস্যা বাড়বে। এখনই উচ্চ রক্তচাপের জন্য তাকে ওষুধ দিতে হয়। ভবিষ্যতে আরো নানা রোগ বাসা বাঁধতে পারে তার শরীরে।

এর আগেও ভারতে এক মেয়েশিশু এই রোগে আক্রান্ত হয়েছিল। রিষা আমারা নামে ওই মেয়েটির বাড়ি কর্ণাটকে। গত বছর ৯ মাস বয়সি ওই শিশুটির ওজন ছিল ১৮ কেজি। কেমব্রিজ হাসপাতালে এখন তার চিকিৎসা চলছে। তার ওজন ২ কেজি কমেছে। উপযুক্ত চিকিৎসা হলে শ্রীজিতও সেরে উঠতে পারে বলেই মত চিকিৎসকের।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts