মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলার অদ্ভুদ লোভ! (দেখুন ভিডিওতে)

পাগল মহিলা

খাবার, টাকাপয়সার লোভ দেখিয়ে কাজ হয়নি। শেষ পর্যন্ত খবরের কাগজের লোভ দেখিয়ে বশ মানানো গেল মানসিক ভারসাম্যহীনকে! রবিবার এমনই ঘটনার সাক্ষী থাকল উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জের রামপুর এলাকা!

জানা গিয়েছে, রবিবার দুপুরে রামপুর এলাকায় চাষের জমিতে কর্মরত কৃষকরা লক্ষ্ করেন, এলাকার একটি বিদ্যুতের টাওয়ারের উপরে এক মহিলা উঠে বসে রয়েছেন। টাওয়ারের কাছে যেতেই বাসিন্দারা ওই মহিলাকে চিনতে পারেন। গত কয়েকমাস ধরেই মানসিক ভারসাম্যহীন ওই মহিলা এলাকায় ঘোরাঘুরি করছিলেন।

স্থানীয় বাসিন্দারা অনেক বুঝিয়েও মহিলাকে টাওয়ার থেকে নামাতে না পারায় শেষ পর্যন্ত দমকলে খবর দেন। রায়গঞ্জ থেকে আসে দমকল। দমকলকর্মীরা যতক্ষণে এসে পৌঁছন, ততক্ষণে ওই মহিলা গলা ছেড়ে গান গাইতে শুরু করেছেন।

ঘটনাস্থলে পৌঁছে দমকলকর্মীরা মানসিক ভারসাম্যহীন ওই মহিলাকে নানা রকমভাবে বোঝাতে থাকেন। কিন্তু নাছোড় মহিলা সেদিকে কর্ণপাত করেননি। টাওয়ার থেকে নেমে এলে তাঁকে পেট ভরে খেতে দেওয়া ছাড়াও টাকা দেওয়ারও লোভ দেখানো হয়। কিন্তু তাতেও রাজি হননি ওই মহিলা।

তখনই মুশকিল আসান হয়ে দেখা দেন শেফালি বর্মন নামে স্থানীয় এক বাসিন্দা। হাতে করে একটি সংবাদপত্র নিয়ে আসেন শেফালিদেবী। তাঁর পরামর্শ মতোই স্থানীয় এক যুবক খবরের কাগজটি টাওয়ারের উপরে বসে থাকা মহিলার হাতে পৌঁছে দেন। টাওয়ারের উপরে বসে আধ ঘণ্টা ধরে সেই খবরের কাগজ উল্টেপাল্টে ‘পড়েন’ ওই মহিলা। এর পরে নিজেই টাওয়ার থেকে নেমে আসেন ওই মানসিক ভারসাম্যহীন।

কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দা, দমকল কর্মীরা এতক্ষণ চেষ্টা করেও যা পারলেন না, সেই অসাধ্য সাধন কীভাবে করলেন তিনি? হেসে শেফালিদেবী বলেন, ‘‘প্রায় মাসখানেক ধরেই ওই মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলা দুপুরে আমার বাড়িতে যান। বাইরের বারান্দায় রাখা খবরের কাগজটি নিয়ে কিছুক্ষণ সময় কাটিয়ে উনি চলে যান। ওঁর এই অভ্যাসের কথা মাথায় রেখেই আমি খবরের কাগজ সঙ্গে নিয়ে এসেছিলাম। শেষ পর্যন্ত তা কাজে দেওয়ায় সকলেই হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছি।’’

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts