যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম লিঙ্গ প্রতিস্থাপন

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম লিঙ্গ প্রতিস্থাপন

যুক্তরাষ্ট্রে এই প্রথম কোনো ব্যক্তির লিঙ্গ প্রতিস্থাপন করেছে দেশটির চিকিৎসকরা। ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে যৌনাঙ্গ কার্যকারিতা হারিয়ে ফেললে তা প্রতিস্থাপনের সিদ্ধান্ত নেন ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দা ৬৪ বছরের থামাস ম্যানিং। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তারা সফলভাবেই কাজটি সম্পন্ন করেছেন।

বর্তমানে আগের মতোই স্বাভাবিকভাবে কাজ করছে ম্যানিংয়ের যৌনাঙ্গ। ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হাসপাতালের জানান, যৌনাঙ্গদাতা মৃত এক ব্যক্তির লিঙ্গটি তার শরীরে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। এই অস্ত্রপচারে তাদের সময় লেগেছে ১৫ ঘণ্টার কিছু বেশি সময়। চলতি মাসের শুরুর দিকে অস্ত্রপচারটি সম্পন্ন হয়।

ম্যানিং জানান, তিনি এখন ভালো আছেন। তবে অস্ত্রপচারের সময় সামান্য ব্যথা অনুভব করেছেন।

অস্ত্রপচারটি পরীক্ষামূলকভাবে করা হলেও চিকিৎসকরা এর সফলতার ব্যাপারে আশাবাদী ছিলেন। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই স্বাভাবিকভাবে মূত্রত্যাগ করতে পারবেন ম্যানিং। তবে যৌনকর্মের জন্য তাকে আরো কয়েক মাস অপেক্ষা করতে হবে।

ম্যানিংয়ের ক্ষেত্রে বিষয়টি পুরোপুরি সফলতার মুখ দেখলে যুদ্ধক্ষেত্রে যৌনাঙ্গ হারানো সৈনিকদের চিকিৎসার জন্যও প্রযুক্তিটি ব্যবহার করা যাবে। এছাড়া অন্যদের ক্ষেত্রেও ব্যবহারে সমস্যা থাকবে না।

প্রথমে বেসামরিক লোকদের জন্যই প্রযুক্তিটি কাজে লাগাতে চান চিকিৎসকরা। এরপরের টার্গেটে থাকবে সামরিক সদস্যরা। দীর্ঘদিন ধরেই এ ধরনের একটি প্রযুক্তির জন্য অপেক্ষা করছিল প্রতিরক্ষা বিভাগ। যুদ্ধে অনেক সৈনিক তাদের লিঙ্গ হারায়, যাদের কোনো চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয় না।

এর আগে ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকা সফল একটি লিঙ্গ প্রতিস্থাপনের কাজ সম্পন্ন করে। গত বছর একটি সন্তানও জন্ম নিয়েছে প্রতিস্থাপিত ওই ব্যক্তির। তবে ২০০৬ সালে একই কাজে চীনের একটি উদ্যোগ ব্যর্থ হয়।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts