যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েও যে কারণে মুখ খোলে না মেয়েরা?

যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন মেয়েরা
Share Button

সারা পৃথিবীতে হরহামেশাই যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন মেয়েরা। পারিবারিক পরিবেশ, শিক্ষাক্ষেত্র, কর্মক্ষেত্র কোনো অঙ্গনেই নারীর প্রতি যৌন সহিংসতা থেমে নেই বলে অভিযোগ উঠেছে। আর তা মুখবুজে সহ্য করছেন তারা।

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও শালিস কেন্দ্র বলছে, ২০১৭ সাল জুড়ে ধর্ষণের ঘটনার সংখ্যা যেমন বেড়েছে, সেই সাথে বেড়েছে যৌন সহিংসতায় নিষ্ঠুরতা ও ভয়াবহতা। খবর বিবিসি।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এসব যৌন নির্যাতনের ঘটনার বিষয়ে সরাসরি মুখ খুলতে চান না কেউ। শোবিজ বা কর্পোরেট জগতের নিজেদের সাথে ঘটে যাওয়া এমন সব হয়রানির কথা জানালেও, বেশ কজনই সরাসরি বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

ঢাকার বনশ্রী এলাকার একজন নারী (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) কাজ করতেন নামকরা একটি প্রতিষ্ঠানে। কর্মক্ষেত্রে বসের দ্বারা বিভিন্নভাবে যৌন হয়রানির শিকার হয়ে শেষশেষ চাকরি ছেড়ে দিতেই বাধ্য হন।

বিবিসি কে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ‘একদিন গিয়ে ডেস্কে বসেছি। আমার ব্রাঞ্চের একজন বস আমাকে ফোন দিয়ে বলে ‘আজ কি রং এর ব্রা পড়ে এসেছো?’ আমি তো শক্ড হয়ে গেলাম। পড়ে বললাম আপনাকেএকটা থাপ্পড় মারবো। সে বলে মারো, তাও ভালো …

আবার একদিন মেসেঞ্জারকে দিয়ে সিনেমার টিকেট কাটিয়ে এনে খবর দিচ্ছে’। স্যার আপনাকে নিয়ে সিনেমায় যাবে। মেসেঞ্জারদের মাধ্যমে এভাবে চাউর করা হতো, আমাকে ব্ল্যাকমেইল করা হতো। পরে আমি বাধ্য হলাম চাকরিটা ছেড়ে দিতে’।

এ সমস্ত হয়রানির ক্ষেত্রে সাহস করে মুখ খোলার যে অনীহা, তা প্রায় তিনবছর আগে পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে গণহারে যৌন হয়রানির একটি ঘটনার সময় প্রকটভাবে দেখা গেছে। ফলে সেই ঘটনার পর যে তুমুল দাবি উঠেছিল বিচারের তাও স্তিমিত হয়ে গেছে।

সোশ্যাল মুভমেন্ট বিষয় নিয়ে গবেষণা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ডক্টর সামিনা লুৎফা। তিনি মনে করেন এধরনের ক্যাম্পেইন বাংলাদেশে বড় কোনো মুভমেন্ট হিসেবে গড়ে উঠতে না পারার পেছনে অনেকগুলো বিষয় কাজ করেছে।

বিবিসি কে তিনি জানান, ‘যে কোনো যৌন নিপীড়নের বিষয়ে কথা বলার বিষয় নির্ভর করে কিভাবে সমাজে নিপীড়ণকারী এবং নিপীড়িতকে দেখা হচ্ছে তার ওপরে। যদি সমাজে যৌন নিপীড়ককে একজন অপরাধী হিসেবে দেখা না হয় এবং দেখা হয় পৌরুষের অংশ হিসেবে তাহলে দুধরনের বিষয় ঘটে। একটা হচ্ছে যৌন নিপীড়নকে বুঝতে চিনতে পারেনা মানুষ। দ্বিতীয় বিষয় হচ্ছে যে পরিস্থিতিতে আছেন সে অবস্থায় তিনি সেটা বলার সাহস পাচ্ছেন কি-না’।

আর যৌন নিপীড়ন কিন্তু যৌন ইচ্ছা থেকে তৈরি হয়না, এটা কিন্তু হয় পুরুষের ক্ষমতার চর্চা থেকে। পুরুষ তার ক্ষমতাকে চর্চা করে অধীনস্ত নারীকে নানাভাবে হেনস্থা করার মধ্য দিয়ে”।

তার মতে, ‘ক্ষমতাশালী পুরুষের বিরুদ্ধে নারী কথা তখনই বলবে যখন সে বিচারের সম্ভাবনা জানবে। কিন্তু এ সমাজ নিপীড়িত নারীকে আরো বেশি নিপীড়ন করে”।

মেয়েরা যতই ঘর থেকে বের হচ্ছে এ ধরনের নির্যাতন কমার বদলে আরো বাড়ছে বলে বলছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের এই শিক্ষক সামিনা লুৎফা। বিবিসি

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts