সুন্দরী পরিচারিকার টানে পিৎজা দোকানে লম্বা লাইন!

পিৎজা
Share Button

রাতারাতি বিক্রি বেড়ে গিয়েছে পাকিস্তানের মুলতানের এক পিৎজা শপের। আগের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ! অথচ এমন নয়, পিৎজার স্বাদ আগের থেকে অনেক বেড়ে গিয়েছে। তা হলে কেন খদ্দেররা লাইন লাগাচ্ছেন এই দোকানে! কারণটা বড়ই অদ্ভুত।

আসলে টেবিলে টেবিলে পিৎজা পৌঁছে দেওয়ার কাজ করছে যে পরিচারিকা, তাকে দেখতেই ভিড় জমাচ্ছেন সকলে। কারণ, সেই পরিচারিকা আসলে মানুষ নয়। এক যন্ত্রমানবী!

ঠিক সত্যজিৎ রায়ের সেই বিখ্যাত ছোটগল্প ‘অনুকূল’-এর মতো এখানেও নিখাদ এক রোবটকে রাখা হয়েছে মানুষের পরিষেবায়। তবে গল্পের রোবটের মতো অত উন্নত নয় সে। কিন্তু তাতে কী! খাবার পরিবেশন করতেই বা কে কবে দেখেছে যন্ত্রকে। সেই ‘অসম্ভব’কে চাক্ষুষ করতেই তাই সকলে ছুটে আসছেন এই পিৎজা শপে। রীতিমতো দর্শনীয় স্থান হয়ে উঠেছে এই দোকান।

একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যাচ্ছে, ২৫ কেজি ওজনের এই রোবটের কাজ খদ্দেরদের অভিবাদন জানানো আর তাঁদের টেবিলে পিৎজা পৌঁছে দেওয়া। পরনে লম্বা পোশাক, তার উপরে চাপানো অ্যাপ্রন। গলায় ঝোলানো স্কার্ফ। গত ফেব্রুয়ারিতে দোকানে রোবটটি আসার পর থেকেই বিক্রি হইহইকরে বেড়েছে। দোকানের মালিক আজিজ জাফরির ছেলে ওসামা বানিয়েছেন এই রোবট পরিচারিকাকে।

এই সেই রোবট পরিচারিকা ছবি- এপি
এই সেই রোবট পরিচারিকা। ছবি: এপি।

জানা যাচ্ছে, আরও তিনটি রোবট পরিচারিকা তৈরি হয়ে গিয়েছে। আপাতত তাদের নিয়ে আরও নতুন পিৎজা শপ খোলার কথা ভাবছেন আজিজ। জানিয়েছেন, ‘‘আমি পিৎজা বিক্রি করি। কিন্তু এখন রেস্তোরাঁ মালিকরা আমার থেকে রোবট কিনতে চান।’’

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts