আজকের জোকস, ২৫ মার্চ ২০১৬

আজকের জোকস

বাধ্যতামূলক প্রেম

প্রেম করা যদি পড়ালেখা করার মত
বাধ্যতামূলক হতো?

তাহলে কি হতো?

→ মায়ের ডায়লগঃ আজকে সারাদিন
একটা মাইয়াও পটাস নাই, আজ আসুক তোর বাবা !!!

→ বাবার ডায়লগঃ হারামজাদা,
তোকে খাইয়ে-পরিয়ে কি লাভ?
দশটা মাইয়ার মধ্যে সাতটার কাছ
থাইক্যাই
ছ্যাঁকা খাইয়া বাড়ি ফিরছস !!! রিকশাওয়ালার মাইয়ার কাছ
থাইক্যাও কেউ ছ্যাঁকা খায় ???

→ স্কুলের টিচারের ডায়লগঃ কাল
সবাই ৩টা নতুন
মেয়ে ফিটিং করে নিয়ে আসবে !!!

→ প্াইভেট টিচারের ডায়লগঃ কাল সারারাত চুমকির
সাথে ফোনে গ্যাজাইতে বলে গেছ
গ্যাজাইছো?

— হ্যাঁ স্যার! — দেখি, কল- ডিউরেশন
বাইর
করো! — ইয়ে মানে . . . — বুঝছি, গ্যাজাও নাই।
একটা দিনও বাড়ির কাজ করোনা!
ডাকো তোমার মাকে !!!

→ চৌধুরী সাহেবের মেয়ের
ডায়লগঃ আমার
বাবার এক-ডজন গার্লফ্রেন্ড আছে! তোমার বাবার
আধা-মরা একটা বউ ছাড়া আর
কি আছে ???

→ সবশেষে আবুলের ডায়লগঃ মা,
পেটটা ব্যাথা করতাছে, আইজকা ডেটিংয়ে যামুনা . . . ! ! ! মা :
হারামজাদা আজকে তোর একদিন
কি আমার এক দিন

পুলিশের প্রতিশোধ

একজন মহিলা ট্রাফিক সিগনাল ভঙ্গ করলো
Police:থামুন ….

Lady:আমাকে যেতে দিন আমি একজন টিচার ………
… … …
Police:আহ হা এই মুহুর্তটার জন্য সারাজীবন অপেক্ষা করেছি ….এখন খাতায় ১০০ বার লিখুন “”আমি জীবনে আর কখনোই ট্রাফিক সিংগ্যাল ভঙ্গ করবো না “”

hair spray

দাদা আর নাতি বাগানে বসে ছিল।
তো মাটির ভিতর
থেকে একটি কেঁচো বের হয়ে আসলো।
নাতিঃ- দাদা এই কেঁচোটাকে আবার
মাটির গর্তের ভিতর
ঢুকিয়ে দিতে পারবে?
দাদাঃ-না! এটা অসম্ভব। কারন
কেচো তো খুবই নরম।
এটাকে মাটিতে ঢুকিয়ে দেয়া যাবেনা,
নাতিঃ-যদি ঢুকাতে পারি।
দাদাঃ-তুই পারলে আমি তোকে ১০০
টাকা দিবো।
দাদা নাতি লাগালো বাজি।
নাতি বাড়ির ভিতরে গিয়ে একটা hair
spray নিয়ে আসলো। তার পর কেচটির
গায়ে স্প্রে করলো। কিছুক্ষণের
মধ্যে কেঁচোটি একদম শক্ত হয়ে গেলো।
নাতি তখন খুব সহজেই কেচোটাকে আবার
সেই মাটির গরতের ভিতর ঢুকে দিলো।
,
দাদা ওই hair spray টা নিয়ে বাড়ির
ভিতরে গেলো।
আধা ঘণ্টা পর দাদা আবার
বাগানে এসে নাতিকে ৬০০
টাকা দিয়ে বলল।
এই ধর বাজিতে জিতার টাকা।
নাতিঃ- (আশ্চর্য হয়ে)
দাদা আমরা তো বাজি ধরেছিলাম ১০০
টাকার। কিন্তু তুমি আমাকে ৬০০
টাকা দিচ্ছ কেনো?
দাদাঃ- আসলে ১০০ টাকা বাজির। আর
বাকি ৫০০ টাকা তোর
দাদি খুশি হয়ে তোকে উপহার দিয়েছে |

BLOCK

ফেইসবুকে বল্টু এক
মেয়ের CHATING…!!
বল্টু : হাই
মেয়ে : হেলো
বল্টু: স্টার জলসা দেখো??
মেয়ে: না
বল্টু: জি বাংলা??
মেয়ে: না।
বল্টু: স্টার প্লাস??
মেয়ে: এটাও না তারপর বল্টু বলল :
“তাহলে তো এটা
ফেইক ID !!!
বেটা বদমাশ…
যা BLOCK খা

টাকা চুরি

স্বামী: আমার জান কে??
স্ত্রী:আমি ♥♥
স্বামী: আমার প্রান কে??
স্ত্রী:আমি
স্বামী:আমার মন চুরি কে করেছে?? ♥♥
স্ত্রী: আমি
স্বামী:আমার টাকা চুরি করেছে কে??
স্ত্রী:আমি।….ইয়ে….মানে………

প্রাইভেট কম্পানীতে চাকরী

স্বর্গের দরজায় তিনজন লোক দাড়িয়ে আছে।
ঈশ্বরের অলৌকিক বজ্রকন্ঠ ভেসে এলো ‘ তোমাদের মধ্য থেকে কেবল একজন ভেতরে আসতে পারবে’
১ম ব্যক্তি: আমি ধর্মপূজারী। সারা জীবন আপনার গুনগান করেছি, আপনার
কথা মেনে চলেছি, স্বর্গে ঢোকার অধিকার আমার সবচেয়ে বেশী।
ঈশ্বর নিশ্চুপ।

২য় ব্যক্তি: আমি সমাজ সেবক, সারা জীবন আপনার সৃষ্টির সেবা করছি, তাদের দুঃখ
দুর করেছি, স্বর্গে ঢোকার অধিকার আমারই বেশী।
ঈশ্বর নিশ্চুপ।

৩য় ব্যক্তি: আমি সারা জীবন একটা প্রাইভেট কম্পানীতে চাকরী……….. ‘থাম’
ঈশ্বরের ধরা গলার আর্তনাদ ভেসে এলো ‘ আর একটা শব্দও বলবি না….আমারে কান্দাবি নাকি পাগলা…আয় ভেতরে আয়…. তোর সারা জীবন বসের ঝাড়ি খাওয়া, প্রমোশন না হওয়া, বছর শেষে বেতন না বাড়া, অফিস পলিটিক্স সামলানো, বিনা পয়সায় ওভারটাইম, রাত করে বাড়ি ফেরা, বাসে ঝুলে আসা যাওয়ার কষ্ট, উইকইন্ডে বাসায় কাজ করা, পরিবারকে সময় না দেওয়া, সংসার চালানোর কষ্ট…..কয়টা বলবো…সেন্টিমেন্টাল করে দিলি রে পাগলা……আয় ভেতরে…!!!

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment