জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল খেলে স্ট্রোক ও ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে!

পিল খেলে স্ট্রোক ও ক্যান্সারের ঝুঁকি
Share Button

দীর্ঘদিন ধরে জন্মনিয়ন্ত্রন পিল খেলে নারীদের শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।আমাদের দেশের বেশিরভাগ নারীরা জন্মনিয়ন্ত্রনের জন্য পিল খেয়ে থাকেন। তবে দীর্ঘসময় ধরে (৫ থেকে ৭ বছর ) নিয়মিত জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল খেলে স্ট্রোক, ক্যান্সার ও বন্ধ্যত্বের ঝুঁকি বাড়ে।

পিল খাওয়ার ফলে অনেক নারীর বমি বমি ভাব, মাথাব্যথা, ব্রেস্টে ব্যথা, ওজন বৃদ্ধি, পিরিয়ড বন্ধ হয়ে যাওয়া, পিরিয়ডবিহীন ব্লিডিং, বিষণ্নতা বা ডিপ্রেশন, টেনশনে শারীরিক মিলনের আগ্রহ কমে যাওয়া ইত্যাদি হতে পারে। এক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে পিল খাওয়াই ভালো। বাজারে অনেক ধরনের পিল আছে । তবে কোন পিল আপনার শরীরের সঙ্গে মানানসই তা জানার জন্য ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

যে নারীদের রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বেশি, যাদের ডায়াবেটিস ও হাইপারটেনশন আছে এবং যারা কিছুটা স্থূলকায়, তাদের ক্ষেত্রে খাবার পিলে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

এ ছাড়া দীর্ঘদিন পিল খেলে (৫-৭ বছরের অধিক সময়) ব্রেস্ট ক্যান্সার কিংবা জরায়ু মুখের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। তবে জরায়ু মুখের ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়া লিভারের সমস্যাও হতে পারে।

কোনো জন্মনিয়ন্ত্রণ পিলই দুই বছরের অধিক সময় খাওয়া উচিত নয়। দুই বছর পর পর জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি পরিবর্তন প্রয়োজন। আর এক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

৭ বছরের অধিক সময়ে পিল খাওয়া উচিত নয়। আর দুই বছর পর পর জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি পরিবর্তন করা উচিত। জন্মনিয়ন্ত্রণে পিল খাওয়ার বিকল্প হিসেবে কনডম ব্যবহার করা যেতে পারে।

টানা দুই বছরের অধিক সময় পিল নয় :

টানা দুই বছরের অধিক সময় পিল খেলে নারীদের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে। ৭ বছরের অধিক সময় ধরে পিল খেলে স্টোক, ক্যান্সার ও বন্ধ্যত্বের ঝুঁকি বাড়ে।

দুই বছর পর জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি পরিবর্তন :

দুই বছর পর পর জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি পরিবর্তন করতে হবে। দুই বছর পর পর জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি পরিবর্তন করলে স্টোক, ক্যান্সার ও বন্ধ্যত্বের ঝুঁকি কমায়। এ ছাড়া শারীরিকভাবেও নারীরা ভালো থাকেন।

কনডম ব্যবহার :

পিল খাওয়ার চেয়ে কনডম ব্যবহারকে নিরাপদ বলে জানিয়েছেন বেদৌরা শারমিন। কনডম ব্যবহার করলে কোনো ধরনের ঝুঁকি থাকে না।

মিষ্টি ও চর্বিজাতীয় খাবার পরিহার :

পিল খাওয়ার পর ওজন বাড়ে। তাই মিষ্টি ও চর্বিজাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে। ওজন বাড়লে বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

পিরিয়ডের আগে ও পরে :

পিল বা কনডম কোনো কিছু ব্যবহার ছাড়া জন্মনিয়ন্ত্রণ হতে পারে। এক্ষেত্রে মাসিক শুরু হওয়া থেকে ১০ দিন এবং বন্ধ হওয়ার পর আবার শুরু হওয়ার আগের ৮ দিন।

-ডা. বেদৌরা শারমিন
গাইনি কনসালট্যান্ট
সেন্ট্রাল হাসপাতাল লিমিটেড, ঢাকা।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts