টিনএজার ও অল্পবয়সিরা কীভাবে নিজেদের ফিট রাখবে

টিনএজার ও অল্পবয়সিরা কীভাবে নিজেদের ফিট রাখবে
Share Button

ফিটনেস ফ্রিক টিনএজ পাঠিকাদের আমি আন্তরিকভাবে অনুরোধ করছি, যেন তারা আমার এই ফিটনেস কর্মযজ্ঞে সামিল হয়ে মন খুলে তাদের শারীরিক গঠনমূলক সব সমস্যা আলোচনা করে তার সঠিক সুরাহার পথ বেছে নিতে পারে।

এই কথাটা বলার কারণ, অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, টিনএজাররা খুব তাড়াতাড়ি দেহের ওজন কমাতে গিয়ে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ডিজাস্টার ডেকে আনে। মনে রাখতে হবে, কোনও জিনিসের জন্য সাফল্য লাভ করতে গেলে দরকার নিয়মানুবর্তিতা, ধারাবাহিকতা এবং ধৈর্য। কথায় আছে ‘স্লো অ্যান্ড স্টেডি উইনস দ্য রেস’।

এই কথাগুলো যারা ফিটনেস ফ্রিক, তাদের জন্য যেমন প্রযোজ্য— ঠিক তেমনই প্রযোজ্য যে সব পাঠিকা বন্ধুরা দেহের ওজন কমিয়ে শরীরের সৌন্দর্যায়নের চিন্তাভাবনা করছে। এই কর্মকাণ্ডে সফল হতে গেলে ধৈর্য ধরতেই হবে— তাড়াহুড়ো করলেই বিপদ। তাড়াহুড়ো করলে কীরকম বিপদের সম্ভাবনা, তার কিছু উদাহরণ আমার দেওয়া দরকার।

মেয়েদের এই ক্ষেত্রে প্রথম প্রবণতা হচ্ছে ক্র্যাশ ডায়েট। কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রায় একদমই না খেয়ে অনশন ব্রত অবলম্বন করা। অনেকেই ভাবে, একদম না খেলেই বোধহয় খুব তাড়াতাড়ি ওজন কমবে। এটা একদম ভুল ধারণা। এতে বিএমআই লেভেল খুব খারাপ হয়ে যায়। রক্তে হিমোগ্লোবিন লেভেল নেমে গিয়ে অ্যানিমিয়া হতে পারে। এতে চেহারা ফ্যাকাশে হয়ে যায়, শরীর দুর্বল হয়, মাথা ঘোরে আর গ্ল্যামারের তো দফারফা।

ব্লাড সুগার অত্যধিক নেমে গিয়ে মাথা ঘোরা শুরু হয়। কোনও কোনও সময় ব্লাড প্রেশার নেমে যায়। দেহের হাড় কমজোরি হয়ে যায় আর মেজাজ হয় খিটখিটে। আমি আমার পাঠিকা বন্ধুদের বলি— ‘আ পারসন ইজ অ্যাংরি হোয়েন শি ইজ হাংরি!’। কথাটা কি ভুল বললাম? আরও বলি ‘ফিটনেস ইজ নট সিকনেস’!

শরীর ফিট করতে গিয়ে যদি চোখের তলায় এক পোঁচ কালি পড়ে, মুখ পুরো ভেঙে যায়, শরীর দুর্বল হয়ে যদি খিটখিটে মেজাজ হয়ে যায় তবে সেটা সিকনেস, কোনওভাবেই ফিটনেস নয়। দেহের ওজন কমানোর সঙ্গে সঙ্গে আরও কর্মক্ষম, আরও এনার্জি, আরও হাসিখুশি, কনফিডেন্ট আর আরও গ্ল্যামারাস হওয়াকেই আমি সত্যিকারের ফিট বলি।

আরও একটা সমস্যা হচ্ছে তাড়াতাড়ি বডিওয়েট কমাতে গিয়ে কোনও ডায়েট প্ল্যান ছাড়া ক্র্যাশ ডায়েটের সঙ্গে সঙ্গে ওভার-এক্সারসাইজ আর নিষ্প্রয়োজনীয় এক্সারসাইজ। এই দুটোই খারাপ। সেই জন্যই আমার টিনএজ পাঠিকা বন্ধুদের কাছে আবেদন যেন তারা এর পরের ব্লগগুলো মনোযোগ দিয়ে পড়ে সঠিক প্ল্যানমাফিক এগোতে থাকে যাতে কিছুদিনের মধ্যেই তারা ‘ফিট’, ‘এনার্জেটিক’, ‘কনফিডেন্ট’ আর ‘গ্ল্যামারাস’ টিনএজার হিসেবে পরিচিত হতে পারে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts