যৌনজীবন রোমাঞ্চকর হয়ে ওঠে কোন বয়সে

ইমরান ও মডেল রোতসী সেক্স
Share Button

বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে মানুষের যৌন আকাঙ্ক্ষা কমে আসে। এমনটাই ধারণা সাধারন মানুষের। কিন্তু কানাডার ইউনিভার্সিটি অব গুয়েলপ-এর বিশেষজ্ঞদের গবেষণায় উঠে এসেছে ভিন্ন ফলাফল। তাতে বলা হয়, বয়স ৪০-এর কোঠায় পৌঁছলেই যৌনজীবনটা হয়ে ওঠে আরো রোমাঞ্চকর।

এ গবেষণায় কানাডার ২৪০০ জন মানুষের ওপর জরিপ চালানো হয়। এদের সবার বয়স ৪০-৫৯ বছরের মধ্যে। তাদের যৌনস্বাস্থ্য, সুখের মাত্রা এবং তৃপ্তি সম্পর্কে তথ্য নেওয়া হয়। তাদের যৌন আচরণ ও উদ্দীপনাও বিবেচনায় আনা হয়।

প্রধান গবেষক এবং সেক্সুয়ালিটি অ্যান্ড রিলেশনশিপ রিসার্চার রবিন মিলহাউসেন জানান, মানুষের মনে সাধারণ এক ধারণা কাজ করে যে, বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে যৌনতা গুরুত্ব হারায়। এটি কম উপভোগ্য হয়ে ওঠে। তা ছাড়া ঘন ঘন করতেও আর ভালো লাগে না। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে, মধ্যবয়সের শুরুতেই যৌনতা সবচেয়ে বেশি গভীরতা পায়। এতে তৃপ্তির মাত্রা চূড়ায় পৌঁছে। জরিপে এ তথ্যই পাওয়া গেছে। কানাডায় মধ্যবয়সীরাই তৃপ্তিকর যৌনতা উপভোগ করেন।

দেশটির সেক্স ইনফরমেশন অ্যান্ড এডুকেশন কাউন্সিল অব কানাডা (এসআইইসিসিএএন) এবং ট্রোজান নামের এক কনডম কম্পানির যৌথ গবেষণায় এসব তথ্য প্রকাশ পায়। যৌন আকঙ্ক্ষা বা তৃপ্তি বয়সের সঙ্গে কমে আসে না।
জরিপে দেখা গেছে, এ বয়সী মানুষরা তাদের শেষ যৌনকর্মকে সবচেয়ে তৃপ্তিকর বলে উল্লেখ করেছেন। এদের প্রত্যেকেই প্রাথমিক অবস্থায় নিজেদের মধ্যকার আবেগগত সম্পর্ক নিয়ে সন্তুষ্ট।

জরিপকৃতদের ৬৩ শতাংশই মনে করেন, বয়স্করা মনে করেন তারা যৌনতায় আরো নতুন নতুন বিষয় চেষ্টা করতে পারেন। আরেক তথ্যে বলা হয়, ৫৫-৫৯ বছর বয়সীদের ২২ শতাংশ পুরুষের এবং ২৬ শতাংশ নারীর লুব্রিকেন্ট ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে।
মিলহাউসেন জানান, সম্পর্ক এবং যৌনতার মধ্যকার তৃপ্তি একে অপরের সঙ্গে জড়িত। এ দুয়ের সমন্বয়েই তৃ্প্তিকর অনুভূতি সর্বোচ্চ পর্যায়ে যায়।

এ ছাড়া বিবাহিত মানুষের জীবনে যৌন তৃপ্তি একাকীদের চেয়েও অনেক বেশি থাকে বলে জানানো হয় গবেষণায়।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts