স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করার সঠিক নিয়ম

পিরিয়ড়ে মেয়েদের স্বাস্থ্য সচেতনতা
Share Button

পিরিয়ড শুরু হওয়ার আগে ও চলাকালীন নারীদের বিভিন্ন ধরনের শারীরিকি পরিবর্তন দেখা দেয়। এই সময়টা তাই অন্য সময়ের চেয়ে একটু বেশি স্বাস্থ্য-সচেতন হতে হয়। কারণ আপনার সামান্য অসচেতনতায় হতে পারে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি।

পিরিয়ডের সময়টুকুতে নারীই নানা ব্র্যান্ডের স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করেন। কিন্তু আপনি নিজের অজান্তেই স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের সময় কিছু ভুল করে থাকেন। ভুলের কারণে হতে পারে চুলকানি, র‌্যাশসহ ত্বকের নানা রকম অসুখ। তাই এই সময়ে সচেতন থাকা জরুরি।

সেন্ট্রাল হাসপাতাল লিমিটেডের গাইনি কনসালটেন্ট বেদৌরা শারমিন বলেন, পিরিয়ডে ভালো মানের ন্যাপকিন ব্যবহার করা জরুরি। এছাড়া কোনোভাবেই একই কাপড় পরিষ্কার করে একাধিকবার ব্যবহার করা যাবে না। পিরিয়ডের সময় শরীর থেকে যে রক্ত প্রবাহিত হয়, তার মধ্যে ব্যাকটেরিয়া থাকে।

তিনি বলেন, পিরিয়ডের সময়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা খুবই জরুরি। অস্বাস্থ্যকর বস্তু ব্যবহারের জন্য মেয়েদের দুটি প্রধান সমস্যা দেখা দিতে পারে- প্রথমত, পাইরজেনিক অর্গানিজমে ব্যাক্টেরিয়াল ইনফেকশন হয়। এছাড়া ঋতুস্রাবের শেষের দিকে অল্প রক্তপাত হয় এবং এ কারণে সেই রক্ত দ্রুত শুকিয়ে সেখানে জীবাণুর আক্রমণ হয়, যা যোনিপথের সংস্পর্শে এসে চুলকানি, ফোঁড়া, ইনফেকশন হতে পারে।

তিনি আরও বলেন, স্যানিটারি ন্যাপকিন কোনোভাবেই তিন বা চার ঘণ্টার বেশি পরা উচিত নয়। ঋতুস্রাবের শুরুর দুই ও তিন দিন অতিরিক্ত রক্তস্রাব নিঃসরণ হয়। এ সময় অনেকে ছয় বা সাত ঘণ্টা পর পর প্যাড পরিবর্তন করে। কিন্তু চতুর্থ বা পঞ্চম দিন থেকে স্রাব কমে আসায় একই ন্যাপকিন ২৪ ঘণ্টা বা আরও বেশি সময় ধরে অনেকে পরে থাকে। তাই হতে পারে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি।

আসুন জেনে নেই কীভাবে ব্যবহার করবেন স্যানিটারি ন্যাপকিন

চার ঘণ্টার বেশি ন্যাপকিন ব্যবহার নয়
চার ঘণ্টার বেশি কোনোভাবেই ন্যাপকিন ব্যবহার করা যাবে না। চুলকানি, ফোঁড়া, ইনফেকশন হতে পারে।

ন্যাপকিন বদলানোর সময় অসতর্কতা
ন্যাপকিন বদলে নতুন একটি ন্যাপকিন পরার আগে ভালোভাবে হাত ও ওই স্থানটি পরিষ্কার করে ধুয়ে ও মুছে নিন। হাত না ধুয়ে ন্যাপকিন ধরার কারণে হাতে লেগে থাকা জীবাণু প্যাডে লেগে যায় এবং সেখান থেকে জরায়ুতেও প্রবেশ করতে পারে। প্রয়োজনে জীবাণুনাশক ব্যবহার করুন।

বাথরুমে ন্যাপকিন রাখা যাবে না
টয়লেটে স্যানিটারি ন্যাপকিন রাখা যাবে না। কারণ টয়লেটে থাকা নানা ধরনের জীবাণু দ্বারাও সেটি দ্রুত আক্রান্ত হয়। জীবাণুযুক্ত প্যাড ব্যবহারের ফলে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়তে পারেন আপনি।

মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ
স্যানিটারি ন্যাপকিন কেনার সময় অবশ্যই মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ খেয়াল করতে হবে। কারণ মেয়াদোত্তীর্ণের ফলে এটির কার্যক্ষমতা হ্রাস পেতে পারে এবং আপনার স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই এ বিষয়টিতে অতিরিক্ত গুরুত্বসহকারে দেখতে হবে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts