আমাদেরকে পরবর্তী যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে : ভারতীয় সেনাপ্রধান

জেনারেল বিপিন রাওয়াত

ভারতীয় সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত বলেছেন, অন্যান্য দেশের সাথে চীনের কূটনীতিক, সামরিক ও অংশীদারিত্বের মোকাবেলায় ভারতকে বহুমাত্রিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা জানি যে চীন একটি শক্তিশালী জাতি। কিন্তু আমরা দুর্বল নই। চীনকে পুরো সরকারের সাথেই মোকাবেলা করতে হবে। কূটনীতিক পথ একটি উপায় এবং এটা ভালো কাজ করছে।’

সেনাবাহিনী দিবসের প্রাক্কালে শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমাদের মনোযোগ উত্তর সীমান্তে সরিয়ে নিতে হয়েছে। পশ্চিম সীমান্তে বেশ দীর্ঘ সময় আমরা দিয়েছি। আমাদেরকে অবশ্যই পরবর্তী সময়ের যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। যেটা হবে সাইবার ও মহাকাশ যুদ্ধ।’

সমমনা দেশগুলোর সাথে অংশীদারিত্ব বিনির্মাণের অংশ হিসেবে প্রতিবেশী দেশগুলোর প্রতি সার্বক্ষণিক মনোযোগ দেয়ার আহ্বান জানান জেনারেল রাওয়াত।

তিনি বলেন, ‘আমরা জোট গড়ছি না কিন্তু অন্যান্য গ্রুপের কাছ থেকে আমরা এ অঞ্চলের জন্য সহায়তা চাচ্ছি, যাতে চীনের মোকাবেলার আমরা বিচ্ছিন্ন হয়ে না পড়ি। আমরা এ অঞ্চলের দেশগুলোর সাতে কূটনৈতিক, সামরিক ও অংশীদারিত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়তে চাই। আমরা চাই না, আমাদের প্রতিবেশীদের আমাদের কাছ থেকে সরিয়ে নেয়া হোক।’

জেনারেল রাওয়াত বলেন, চীন বহুদিন ধরেই উত্তর দোকলামে সড়ক নির্মাণ করছে। গত জুনে তারা প্রচুর সরঞ্জাম ও সেনা নিয়ে হাজির হয়েছিল। এতে ভুটানের পক্ষ নিয়ে হস্তক্ষেপ করতে বাধ্য হয় ভারত।

তিনি বলেন, ভারত যখন অন্য দেশের ভূমিতে হস্তক্ষেপ করছিল, তখন পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে চেষ্টা চালানো হয়েছে, যাতে কোন বিভ্রান্তি তৈরি না হয়।

তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছিল, স্থিতিশীলতা নষ্ট হতে চলেছে। তবে চীনের সাথে আমরা একমত হয়েছি, স্থিতিশীলতা নষ্ট হতে দেয়া যাবে না। এই সমস্যা তৈরির কারণ ছিল সড়ক নির্মাণ। তাই আমাদেরকে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছিল।’

তিনি বলেন, ‘চীনা সেনাদের শক্তি এখন কমে এসেছে কারণ শীত চলছে। অথবা তারা নিজেরাই সেখানেই সেনা সমাবেশ কমিয়ে এনেছে। তাবু ও পর্যবেক্ষণ পোস্টগুলো এখনও আছে, বেশিরভাগই অস্থায়ী স্থাপনা। আমরা দেখেছি জনবল কমানো হয়েছে সেখানে। শীতের পর হয়তো তারা আবার ফিরে আসবে। তারা ফিরে আসলে আমরা দেখবো কি করা যায়’।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts