কলেজের ছাদে শিক্ষিকাকে ধর্ষণের চেষ্টা

শিক্ষিকাকে ধর্ষণ
Share Button

একের পর ধর্ষণ ও যৌন হেনস্তার ঘটনা ঘটেই চলেছে ভারতে। তারই ধারাবাহিকতায় এবার দিনদুপুরে যৌন হেনস্তার ঘটনা ঘটেছে ভারতের রাজধানী দিল্লিতে। দিল্লির এক কলেজের ছাদের ওপরই বিকৃতি মানসিকতার শিকার হয়েছেন ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরই এক শিক্ষিকা।

ওই নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, স্কুলের বিরতিতে ফোনে কথা বলার জন্য তিনি ছাদে ওঠেন। এ সময় ২০ বছরের এক যুবক তার পিছু নেয়।

এর পর এক পর্যায়ে হঠাৎই ওই লোকটা তার খুব কাছে চলে আসে। ভাল করে খেয়াল করতেই শিক্ষিকা বুঝতে পারেন সে তার দিকে তাকিয়ে হস্তমৈথুন করছে।

ওই যুবককে দেখে সন্দেহ হওয়ায় শিক্ষিকা তাকে ছাদে উঠার কারণ জানতে চান। এ সময় কোনো উত্তর না দিয়েই তাকে ওই যুবক জড়িয়ে ধরে । এরপর তার সঙ্গে ওই যুবক অশ্লীলতার শেষ সীমায় চলে যেতে শুরু করে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

তখন ওই নারী নিজেকে বাঁচাতে ছাদের দরজার দিকে ছুটে যেতে থাকেন। যুবকটি তাকে আবারও ধাওয়া করে, শিক্ষিকা তাকে ঠেলে সরাবার চেষ্টা করেন। তখনই ও যুবক শিক্ষিকার মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যায়।

শিক্ষিকার দাবি, এ পরিস্থিতিতে তিনি সেখান থেকে চলে যাওয়ার চেষ্টা করলে লোকটি তাকে বাধা দেয় এবং পেছন থেকে জাপটে ধরে শ্লীলতাহানি করে। এ সময় কোনও রকমে নিজেকে ছাড়িয়ে দরজার দিকে ছুটে যান তিনি। কিন্তু দরজা আগে থেকেই ওই ব্যক্তি বন্ধ করে রেখেছিল।

ফের তাকে ধরতে এলে ধাক্কা মেরে অভিযুক্তকে সরিয়ে দেন এবং চিত্কার করতে থাকেন ওই শিক্ষিকা। এতে আশপাশের লোকজন ছুটে আসার আগেই মোবাইল ফোনটি কেড়ে নিয়ে পাশের বাড়ির ছাদ টপকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত।

শিক্ষিকার গোটা অভিযোগের সত্যতা ধরা পড়েছে বিল্ডিং এ লাগানো সিসিটিভি ক্যামেরায়। ঘটনার প্রেক্ষিতে এফআইআর দায়ের হলেও, ওই যুবককে সিসিটিভি থেকে চেনা যাচ্ছে না। কারণ, ফুটেজে দেখা যাচ্ছে সে মুখ ঢেকে ঘটনাস্থলে যায়। ফলে গোটা বিষয়টি পূর্ব পরিকল্পিত বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে।

শ্লীলতাহানির ঘটনায় পুলিশের কাছে অজ্ঞাতপরিচয় ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন শিক্ষিকা। কলেজের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে পুলিশ। আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts