পাঁচ পয়সা জন্য টানা ৪০ বছর ধরে মামলা!

Jadav
Share Button

পাঁচ পয়সা চুরির অপবাদ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য টানা ৪০ বছর ধরে মামলা করে চলেছেন এক ব্যক্তি। এজন্য আদালতের আঙ্গিনায় আসা যাওয়া করতে করতে নানা হয়রানির শিকারও হয়েছেন তিনি। এ ঘটনা ভারতের। ওই ব্যক্তির নাম রণবীর সিং যাদব। তিনি ৫ পয়সার কেলেঙ্কারি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য তিনি খরচ করে ফেলেছেন কয়েক লাখ রুপি। কিন্তু দুর্ভাগ্য, এখনো নিষ্পত্তি হয়নি পাঁচ পয়সার মামলা।

জানা গেছে, ১৯৭৩ সালে এই পাঁচ পয়সা চুরির ঘটনার সূত্রপাত। দিল্লির বাসিন্দা রণবীর সিং যাদব তখন দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশনের বাস কন্ডাক্টর হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সেই সময় তাঁর বিরুদ্ধে একটা অভিযোগ ওঠে।

অভিযোগে বলা হয়, রণবীর সিং যাদব নাকি সরকারকে ঠকিয়ে পাঁচ পয়সা পকেটস্থ করেছেন। এক মহিলা যাত্রীর কাছ থেকে ১৫ পয়সা ভাড়া নিয়ে তিনি ১০ পয়সার টিকিট দিয়েছিলেন। বাকি ৫ পয়সা রণবীর সিং যাদব নিজের পকেটে ঢূকিয়ে নেন বলে অভিযোগ ওঠে। ওই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশনের তদন্তে ১৯৭৬ সালে চাকরি হারান রণবীর সিং যাদব।

সেই সময় সরকারি চাকরি হারিয়ে রীতিমতো অথৈ পানিতে পড়েন তিনি। কিন্তু অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করার পরিকল্পনা নেন। সিদ্ধান্ত নেন, পাঁচ পয়সার চোর অপবাদ ঘোচাতে সরকারের বিরুদ্ধে আদালতে যাবেন। সেই মতো আদালতেও যান তিনি।

তখন থেকে টানা ৪০ বছর ধরে চালিয়ে যাচ্ছেন মামলা। একদিকে রণবীর সিং যাদব। অন্যদিকে দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন। দিল্লি লেবার কোর্টে প্রথম জয় পান রণবীর। আদালত তাঁর রায়ে জানিয়ে দেন, রণবীরকে অনৈতিকভাবে ছাঁটাই করেছে দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন। এরপর মামলা গড়ায় দিল্লি হাইকোর্টে।

সেখানেও গত জানুয়ারি মাসে জয়ী হন রণবীর সিং যাদব। দিল্লি হাইকোর্ট তাঁর রায়ে জানিয়ে দেন, দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন রণবীরকে ক্ষতিপূরণ বাবদ ৩০ হাজার রুপি দেবে। সেইসঙ্গে এক লাখ ২৮ হাজার রুপি গ্র্যাচুইটি এবং এক লাখ ৩৭ হাজার রুপি সিপিএফ বাবদ প্রদান করতে হবে রণবীর সিং যাদবকে।

কিন্ত হাইকোর্টে জিতেও স্বস্তি মেলেনি রণবীরের জীবনে। ক্ষতিপূরণের অর্থ তো পাননি উলটো রণবীরের বিরুদ্ধে দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন ফের মামলা শুরু করেছে উচ্চ আদালতে। ইতিমধ্যে কয়েক লাখ রুপি ব্যয় হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও থামতে রাজি নন রণবীর। জানিয়েছেন, আরো টাকা যায় যাবে। পাঁচ পয়সার চোর অপবাদ থেকে মুক্তির জন্য জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাবেন তিনি।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts