ফিলিস্তিনের ইসরাইলি আগ্রাসনের প্রতিবাদ সমাবেশে ইহুদিরা

resize-350x300x1x0image-164006-1554565142

মুসলমানদের প্রথম কেবলার দেশ ফিলিস্তিনে মুসলমানরাই নির্যাতিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। নিজ দেশেই পরাধীনের মতো জীবন চলছে তাদের।

ইসরাইলের ইহুদি শাসক ও সেনাবাহিনী দ্বারা চরম অত্যাচারিত ও নির্যাতিত হচ্ছে দেশটির মুসলমানরা।

সম্প্রতি ফিলিস্তিনের ইসরাইলি আগ্রাসনের শিকার মুসলমানদের প্রতি সমবেদনা জানাতে লন্ডনে এক বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর এ সমাবেশে অংশ নিয়েছিল লন্ডনের ইহুদি অভিবাসীরা। খবর মিডলইস্ট মনিটরের।

গত ৩১ মার্চ ‘ভূমি দিবস’ উপলক্ষে ফিলিস্তিনের শান্তি ও স্বাধীনতার পক্ষে জনমত গঠনে এ সমাবেশে ইহুদিদের একটি গ্রুপও অংশগ্রহণ করে বলে জানিয়েছে সংবাদ মাধ্যমটি।

দ্য প্যালেস্টাইন ফোরাম ইন ব্রিটেন (পিএফবি) ও প্যালেস্টাইন সোলিডারিটি ক্যাম্পেইন (পিএসসি) যৌথভাবে আয়োজিত এই সমাবেশের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে ফ্রেন্ড অব আল আকসা ও মুসলিম অ্যাসোসিয়েশন অব ব্রিটেন (এমএবি)।

সমাবেশে ইসরাইলি আগ্রাসন ও মানবিক সংকট নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা গেছে অংশগ্রহণকারীদের। এছাড়াও তাদের হাতে ‘ফিলিস্তিনের জন্য স্বাধীনতা’, ‘ইসরাইল বের হও’, ‘ফিলিস্তিন মুক্ত কর’, ‘গাজা আক্রমণ বন্ধ কর’ এসব লেখা প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন ও ব্যানার দেখা গেছে।

সমাবেশের আয়োজকদের অন্যতম প্যালেস্টাইন সোলিডারিটি ক্যাম্পেইন (পিএসসি) এর পরিচালক বিন জামাল বলেন, যারা গাজায় নিজেদের অধিকার ও হারানো ভূমি ফিরে পাওয়ার আন্দোলন করছে আমরা আজ এখানে সেসব নির্যাতিত ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশের জন্য একত্র হয়েছি।

উল্লেখ্য, ১৯৪০ দশকে অবৈধ ইহুদি রাষ্ট্র ইসরাইলের প্রতিষ্ঠালগ্নে বিপুল সংখ্যক ফিলিস্তিনি পরিবারকে তাদের বসতভিটা থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়েছিল। এ ছাড়া গাজায় গত এক দশকের ইসরাইলি অবরোধের কারণে ২০ লাখ লোকের বসতি গাজার অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে। অবরোধ উঠিয়ে নেয়ার বিক্ষোভের কারণে প্রতিনিয়তই ইসরাইলি সেনাদের দ্বারা ফিলিস্তিনিরা নিহত হচ্ছেন।

গত ৫ এপ্রিল ফিলিস্তিনি শিশু দিবস উপলক্ষে ফিলিস্তিনি প্রিজনার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ ২০১৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৬ হাজার ফিলিস্তিনি শিশুকে আটক করেছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts