ভারতকেও বিপদে ফেলবেন ট্রাম্প ?

Share Button

কয়েকটি মুসলিম দেশের অভিবাসন নিয়ম শক্ত করেই হাত গুটিয়ে নিচ্ছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এবার তার নজর ভারতীয়দের ভিসা দেওয়ার নিয়মকে পরিবর্তন করা। সেক্ষেত্রে H-1B ভিসার নিয়ম আরও কঠিন হতে চেলেছে। ফলে কর্ম উপলক্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চাওয়া ভারতীয় তথ্য প্রযুক্তি কর্মীদের উপর নেমে আসতে চলেছে ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞার খড়গ!

মার্কিন প্রেসিডেন্টের আগামী পদক্ষেপ সংক্রান্ত কিছু তথ্য ফাঁস করেছে ভক্স.কম। এই ওয়েব সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট বলছে, আইন করেই আমেরিকায় আসা অভিবাসী ও ভিনদেশি পেশাদারদের সংখ্যা কমানো হবে। রিপোর্টটি প্রকাশ হতেই আন্তর্জাতিক মহলে শোরগোল৷ বিশেষ করে ভারতীয় তথ্যপ্রযুক্তি মহল চিন্তান্বিত৷ তাদের উপরেই বেশি নির্ভরশীল মার্কিন মুলুকের তথ্য প্রযুক্তি শিল্প।

নির্বাচনী প্রচারে বলেছিলেন, ভিনদেশীদের কর্মসংস্থান করা লক্ষ্য নয় বরং দেশের স্বার্থ দেখে অভিবাসন সংক্রান্ত নিয়ম আরও কড়া করা হবে। তখনই প্রশ্ন উঠেছিল, ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে ভারতীয় তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীরা বড়সড় ধাক্কা খেতে চলেছেন। কার্যত সেই ধাক্কা দিতে চলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ওই রিপোর্ট অনুসারে, H-1B ভিসা নিয়ে কাজ করতে আসা প্রত্যেক ভিনদেশি ও সংশ্লিষ্ট সংস্থার উপরে কড়া নজর রাখা হবে। গোয়েন্দাদের কড়া চোখ বিদেশি পড়ুয়ারাও ছাড় পাবে না।

দেশের অভ্যন্তরে সন্ত্রাসবাদকে রুখতে সাতটি মুসলিম দেশের (ইরাক, ইরান, সিরিয়া, লিবিয়া, ইয়েমেন, সুদান ও সোমালিয়া) নাগরিকদের আপাতত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা মিলবে না। প্রেসিডেন্ট পদে বসার এক সপ্তাহের মধ্যে এমনই জানিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ পালটা ইরান সরকার তাদের দেশে মার্কিন নাগরিকদের ভিসা দেবেনা বলেই জানিয়েছে। তালিকা আরো বাড়তে চলেছে৷ জানা গিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্টের পরবর্তী লক্ষ্য পাকিস্তান ও সৌদি আরবের নাগরিকদের আমেরিকায় অভিবাসন আটকে দেওয়া৷ এসবের মধ্যে, ভিসা দেওয়া নিয়ে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার মুখে মার্কিন প্রেসিডেনট।

H-1B ভিসা কী?

এটি পেশাদের জন্য প্রদান করা হয়।
এর সাহায্যে মার্কিন মুলুকের কোম্পানিতে তিন বছর চাকরি করার অনুমতি দেওয়া হয়৷ মেয়াদ পার হওয়ার আগে নবীকরণ করাতে হয় ভিসা। নতুন অনুমতির মেয়াদও থাকে তিন বছর।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts