মধ্যরাত্রে তরুণীর সঙ্গে একি করল পুলিশ?

মধ্যরাত্রে পুলিশ এই তরুণীর জন্য যা করল
Share Button

পুলিশের কাজ জনসেবা। কিন্তু জনসাধারণের একটা বড় অংশের মনে পুলিশ সম্পর্কে ধারণা খুব উঁচু নয়। পুলিশ মানেই দুর্নীতিগ্রস্ত, লেটলতিফ, কর্মবিমুখ— নানা কারণে এমন ধারণা গড়ে উঠেছে সাধারণ মানুষের মনে। কিন্তু সম্প্রতি দিল্লির এক তরুণীর করা একটি ফেসবুক পোস্ট পুলিশ সম্পর্কে এ হেন ধারণা বদলে দিতে পারে।

কী হয়েছিল প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে? ২ জানুয়ারি মধ্যরাত্রে গাড়ি করে বাড়ি ফিরছিলেন প্রিয়ঙ্কা। আচমকাই তাঁর গাড়িটি খারাপ হয়ে যায়। তিনি সাহায্যের জন্য রাস্তা দিয়ে দ্রুতবেগে ছুটে চলা গাড়িগুলিকে থামানোর চেষ্টা করতে থাকেন। কিন্তু অধিকাংশ গাড়িই তাঁর আবেদনকে উপেক্ষা করে চলে যায়। যে সমস্ত গাড়ি দাঁড়ায়, তারাও সাহায্যের জন্য প্রচুর টাকা চেয়ে বসে। কী করবেন ভেবে পাচ্ছিলেন না প্রিয়ঙ্কা। ভাবছিলেন, তবে কি ওই বিপুল অঙ্কের টাকা দিয়েই এই দুরবস্থা থেকে মুক্তির পথ খুঁজবেন?

সেই সময়েই রাস্তায় টহলরত একটি পুলিশ পিসিআর চোখে পড়ে তাঁর। মধ্যরাত্রে রাস্তায় এক তরুণীকে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে পুলিশকর্মীরা জানতে চান, কোনও সাহায্যের প্রয়োজন আছে কি না। প্রিয়ঙ্কা নিজের সমস্যার কথা জানান। তখন পুলিশকর্মীরা নিজেরাই হাত লাগিয়ে সারিয়ে দেন প্রিয়ঙ্কার গাড়িটি। শুধু তা-ই নয়, তিনি ঠিকমতো বাড়ি পৌঁছেছেন কি না, তা-ও খোঁজ নেন ফোন করে।

 

পুলিশের এ হেন ব্যবহারে আপ্লুত প্রিয়ঙ্কা। ফেসবুকে নিজের এই অভিজ্ঞতার কথা লিখে তিনি আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রহ্লাদপুর থানার এএসআই ওম প্রকাশ এবং এএসআই দয়া কিষণকে।

প্রিয়ঙ্কার এই পোস্টে অজস্র লাইক এবং কমেন্ট পড়তে বেশি সময় লাগেনি। সকলেই পুলিশের এ হেন কর্তব্যপরায়ণতায় মুগ্ধ। প্রিয়ঙ্কা যে পুলিশের প্রতি তাঁর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ফেসবুকে, তাতে খুশি দিল্লির ডিসিপি সাউথ ইস্ট। তিনি টুইটারে প্রিয়ঙ্কার পোস্টটি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘আমরা সর্বদা আপনাদের সঙ্গে, আপনাদের জন্য রয়েছি। এক জন বিপদগ্রস্ত তরুণীকে সাহায্যের মাধ্যমে মানবিকতায় আস্থা বর্ধিত হোক।’

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts