মহাকাশে ভারতের স্যাটেলাইট ধংসকে মানব সভ্যতার জন্য ভয়ঙ্কর বললেন নাসা প্রধান

মহাকাশে ভারতের স্যাটেলাইট ধংস কে ভয়ঙ্কর বলে অভিহিত করেছেন নাসা প্রধান জিম ব্রাইডেনস্টাইন।

নাসা প্রধান বলেন ইন্ডিয়ার ধ্বংস করা স্যাটেলাইট থেকে 400 টুকরার বেশি ধ্বংসাবশেষ মহাকাশের অরবিটালে ছড়িয়ে পড়েছে যা আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশন এর জন্য ভয়ঙ্কর।

তিনি আরো বলেন সব টুকরা সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি কেবল মাত্র 10 সেন্টিমিটার এর বেশি টুকরাগুলো সনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। জিম ব্রাইডেনস্টাইন বলেন তারা ইতিমধ্যে অন্তত ৬০ টি ধ্বংসাবশেষ শনাক্ত করেছেন।

লোয়ার অরবিটালে মিসাইল এর মাধ্যমে ইন্ডিয়ার স্যাটেলাইট ধ্বংসের 5 দিন পর সোমবার নাসা প্রধান এক বিবৃতিতে এ দাবি করেন।

প্রায় 300 কিলোমিটার উচ্চতায় সম্প্রতি ইন্ডিয়া তাদের মহাকাশে শক্তি প্রদর্শনের জন্য একটি স্যাটেলাইট ধংস করে মিসাইল এর মাধ্যমে।
তবে এ স্যাটেলাইটটি ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন নিয়ন্ত্রিত স্যাটেলাইট থেকে অনেক নিচু স্তরের।

আমেরিকান মিলিটারি ইতিমধ্যে যেসব ধ্বংসাবশেষ টুকরা সনাক্ত করেছে তা আই এস এস ও অন্যান্য স্যাটেলাইট এর জন্য ভয়ঙ্কর বলে অভিহিত করা হয়েছে।

আই এস এস এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী মহাকাশে তারা এ পর্যন্ত 23000 ধ্বংসাবশেষ সনাক্ত করেছে যা 10 সেন্টিমিটার থেকে আকারে বড় এর মধ্যে প্রায় তিন হাজারের মতো ধ্বংসাবশেষ শুধুমাত্র 2007 সালে চীনের 1 স্যাটেলাইট ধ্বংসের মাধ্যমে উৎপন্ন হয়েছে। ওই স্যাটেলাইটটি প্রায় 530 মাইল উচ্চতায় ধ্বংস করা হয়।

আরো জানা যায় ইন্ডিয়া স্যাটেলাইট ধ্বংসের মাধ্যমে আই এস এস এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত 10 দিনে 44 ভাগ ধ্বংসাবশেষ বৃদ্ধি পেয়েছে মহাকাশে যা বায়ুমন্ডলের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

কারণ এই ধ্বংসাবশেষ পরে বায়ুমন্ডলে প্রবেশ করতে পারে পুরোটা পুড়ে যাওয়ার পরে।

উল্লেখ্য ইন্ডিয়ার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সম্প্রতি জানান এটা ইন্ডিয়ার জন্য গর্বের যে চতুর্থ রাষ্ট্র হিসেবে মহাকাশে স্যাটেলাইট ধ্বংসের সক্ষমতা অর্জন করেছে ভারত।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts