শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যৌন নির্যাতন বেড়েই চলছে ভারতে

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যৌন নির্যাতন
Share Button

এ দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো কি শিক্ষার্থীদের জন্য নিরাপদ নয় ? প্রশ্নটা উঠছে ভারতে। কারণ, স্কুলের ভিতর একের পর এক যৌন নির্যাতনের অভিযোগ। সব ক্ষেত্রেই অভিযুক্ত শিক্ষক। নির্যাতিতরা কখনও শিশু, কখনও কিশোরী।

কলকাতার পর এমনই অভিযোগ উঠল ভুবনেশ্বরের এক স্কুলে। সেখানে ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ভুবনেশ্বরের এই ঘটনায় রীতিমতো নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে শিক্ষার্থী-সহ তাদের অভিভাবকেরা।

ওডিশা পুলিশের দাবি, গত এক মাস ধরেই স্কুল চত্বরের ভিতর ওই নাবালিকাকে ধর্ষণ করছে স্কুলের প্রধান শিক্ষক। ময়ূরভঞ্জ জেলার ওই ঘটনা জানাজানি হতেই অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের উপর চড়াও হন স্থানীয়েরা। বেধড়ক মারধরের পর পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় তাঁকে। নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে বুধবার তাঁকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ময়ূরভঞ্জ জেলার ডিএসপি ভি কে পটেল বলেন, “এক মাস ধরে ধর্ষণের শিকার ওই নাবালিকা। সম্প্রতি নির্যাতনের কথা নিজের বাড়ির লোকজনকে জানায় সে। এর পর অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।”
সম্প্রতি কলকাতায় স্কুলের ভিতরে শিশু শিক্ষার্থীদের যৌন নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে। গত মাসের শেষে রানিকুঠির জি ডি বিড়লা স্কুলে চার বছরের এক নাবালিকার উপর যৌন নির্যাতন করেন স্কুলেরই শারীরশিক্ষার দুই শিক্ষক। অভিযুক্তদের ‘পকসো’ আইনে গ্রেফতার করা হয়।

মাস তিনেক আগে এম পি বিড়লা স্কুলেও সাড়ে তিন বছরের নাবালিকাকে যৌন নির্যাতন করা হয়। ওই দু’টি ঘটনাতেই স্কুল কর্তৃপক্ষের গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে। যদিও ওই দু’টি ঘটনাতেই তদন্ত চলছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts