কৃষি ব্যাংক ১৭১ জন সিনিয়র অফিসার নেবে

কৃষি ব্যাংক ১৭১ জন সিনিয়র অফিসার নেবে
Share Button

১৭১ জন সিনিয়র অফিসার নেবে কৃষি ব্যাংক। পত্রিকায় ছাপা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিটি। আবেদনের শেষ সময় ৬ মার্চ। সিনিয়র অফিসার পদে যারা আবেদন করতে আগ্রহী তারা নজর দিন নিচের বিষয়গুলোতে।

যোগ্যতা : স্নাতকোত্তর অথবা ৪ বছরমেয়াদি স্নাতক ডিগ্রি থাকলে আবেদন করা যাবে। যে কোনো ২টি পরীক্ষায় থাকতে হবে প্রথম বিভাগ কিংবা সমমানের গ্রেড পয়েন্ট। কোনো পর্যায়েই তৃতীয় বিভাগ বা সমমানের গ্রেড পয়েন্ট থাকা চলবে না।

এসএসসি ও এইচএসসির ফলের ক্ষেত্রে জিপিএ ৩.০০ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ, জিপিএ ২.০০ থেকে দ্বিতীয় বিভাগ এবং তদূর্ধ্ব জিপিএ ১.০০ থেকে বেশি এবং ২.০০ থেকে কম থাকলে ধরা হবে তৃতীয় বিভাগ। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিজিপিএর ক্ষেত্রে ৪-এর মধ্যে ৩.০০ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ, ২.২৫-এর বেশি কিন্তু ৩.০০ এর কম দ্বিতীয় বিভাগ এবং ১.৬৫-এর বেশি কিন্তু ২.২৫ এর কম তৃতীয় শ্রেণী ধরা হবে। ‘ও’ লেভেল ও ‘এ’ লেভেলের বেলায় লাগবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ড এবং বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রির ক্ষেত্রে দেশীয় সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়/বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ইস্যু করা সমমান সার্টিফিকেট। সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩০ বছর। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৩২ বছর।

আবেদন করবেন যেভাবে :

অনলাইনে বাংলাদেশ ব্যাংকের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। কোনো ফি লাগবে না। আবেদনের আগে একটি ডিজিটাল ছবি অথবা স্ক্যান করা ছবি রাখুন। পাশাপাশি স্ক্যান করে রাখুন আপনার একটি সই। সব ধরনের তথ্য দেয়ার পর সংযুক্ত করতে হবে ছবি ও স্বাক্ষর। ৮০ কিলোবাইটের বেশি ছবি আপলোড করা যাবে না, রেজুলেশন হতে হবে ৬০০-৬০০। স্বাক্ষরের বেলায় রেজুলেশন হতে হবে ৩০০-৮০, সর্বোচ্চ সাইজ হবে ৬০ কিলোবাইট। তথ্য পূরণ করার পর দিতে হবে পাসওয়ার্ড। কোনো কোটার আওতাভুক্ত হলে ফরমে দেয়া অপশনে ক্লিক করতে হবে।

সফলভাবে আবেদন ফরম পূরণ হলে দেয়া হবে একটি ট্র্যাকিং নম্বরযুক্ত ফরম। ফরমটি সংরক্ষণ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষার সময় এটির দরকার হবে।

নিয়োগ পদ্ধতি : প্রথমে এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষার জন্য তালিকা তৈরি করা হয়। কোনো প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হয় পরীক্ষার সার্বিক দায়িত্ব। পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ করা হয় পত্রিকা ও ওয়েবসাইটে। লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে তৈরি করা হয় মেধাতালিকা। সেখান থেকে ডাকা হয় মৌখিক পরীক্ষায়।

প্রস্তুতিটা যেমন হবে : বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান, অ্যানালিটিক্যাল অ্যাবিলিটি থেকে মোট ৮০টি এমসিকিউ প্রশ্নে ১০০ নম্বর ছিল গতবার। প্রত্যেক প্রশ্নে রয়েছে ১.২৫ নম্বর। রয়েছে নেগেটিভ মার্কিং, প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য কাটা যাবে ০.২৫ নম্বর। লিখিত পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি ও গণিত এই তিন বিষয়ের ওপর প্রশ্ন আসে। ভাবসম্প্রসারণ, পত্রলিখন, ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ এ ধরনের প্রশ্ন হতে পারে বাংলা অংশে। এ ছাড়া বাংলা ব্যাকরণের সাধারণ বিষয়গুলো থেকেও প্রশ্ন থাকতে পারে। ইংরেজিতে গ্রামার, ইংরেজিতে অনুবাদ, বাক্য তৈরি ও শুদ্ধকরণ, প্যারাগ্রাফ, কম্পোজিশন ইত্যাদি আসে। গণিতে প্রশ্ন আসে পাটিগণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি থেকে। বাংলা, গণিত ও ইংরেজির জন্য আয়ত্তে রাখতে হবে নবম-দশম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর পাঠ্য বই। তবে বিসিএসের প্রস্তুতি থাকলে এ পরীক্ষার প্রস্তুতিও অনেকটাই হয়ে যায়। সাধারণ জ্ঞানের জন্য বিভিন্ন কারেন্ট অ্যাফেয়ার্সবিষয়ক মাসিক বেশ কাজে দেবে।

এমসিকিউ এবং লিখিত পরীক্ষায় পাস করার পর মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচি জানিয়ে দেয়া হবে। এরপর জমা দিতে হবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। প্রার্থীর বিশ্লেষণী ক্ষমতা, দক্ষতা, উপস্থাপনা, পোশাক দেখা হয় মৌখিক পরীক্ষায়। প্রশ্ন করা হতে পারে পাঠ্য বিষয়, নিজ জেলা, কৃষি, অর্থনীতি প্রভৃতি থেকে।

যা আছে সুযোগ-সুবিধা : কৃষি ব্যাংকে সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, খুব তাড়াতাড়ি পদোন্নতি পাওয়া যায়। চাকরিতে যোগ দেয়ার তিন বছর পরেই মেলে প্রমোশন। তা ছাড়া নতুন সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী প্রতিবছরের জুলাই মাসে বাড়বে বেতনও। সরকারি সব ধরনের সুযোগ-সুবিধার পাশাপাশি সহজে বিভিন্ন ঋণ নেয়ার সুযোগ রয়েছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts

Leave a Comment