চিকেন ফ্রাই এর সহজ ও সুন্দর রেসিপি

চিকেন ফ্রাই এর সহজ ও সুন্দর রেসিপি
Share Button

চিকেন ফ্রাই নিয়ে আমি আগেও কথা বলেছি, আরো অনেক কথা বলার প্রয়োজন হয়ে পড়ছে। আমার জানা মতে চিকেন ফ্রাই হচ্ছে, নেটে খুঁজে দেখা সারা দুনিয়ার বাংলা ভাষাভাষীদের সব চেয়ে প্রিয় রেসিপি। যারা বাংলা লিখতে পারেন এবং নেটে বাংলা রেসিপি খুঁজেন তারা আমার মনে হয় প্রথমে রেসিপি খুঁজতে বসেই যে রেসিপির নাম লিখে ফেলন তা হচ্ছে, চিকেন ফ্রাই। আজকের এই চিকেন ফ্রাই এর রেসিপি আরো সহজ ও সুন্দর। আপনি চাইলেই আপনার ঘরে এই চিকেন ফ্রাই তৈরী করতে পারেন, ছেলে বুড়ো সবার জন্য এই ফ্রাই বেশ আনন্দদায়ক হতে পারে। তবে আগেই বলে নেই শিশুদের টার্গেট করে বানালে গুড়া মরিচ বা ঝাল কম দিতেই হবে।

 

চলুন দেখে ফেলি, আশা করি আপনাদের ভাল লাগবে।

 

উপকরণঃ (অনুমান আপনি নিজেও করতে পারেন)

– চিকেন, আট টুকরা (একটা সোয়া কেজি, গোটা চিকেনও হতে পারে)
– মরিচ গুড়া, ১ চা চামচ (ঝাল বুঝে কম বেশি)
– সয়াসস (এক টেবিল চামচ)
– চিনি (হাফ চা চামচ)
– লবন (পরিমান মত, তবে হাফ চা চামচের কম)
– ময়দা গুড়া (পরিমান মত, চিকেন গড়িয়ে নেয়ার জন্য)
– তেল (ডুবো তেলে ভাঁজার জন্য পরিমান মত)

প্রনালীঃ

চিকেন পিস গুলো নিজ ইচ্ছা মত করে কেটে নিতে পারেন। ভাল করে পরিস্কার করে নিতে ভুলবেন না। চিকেন গুলো একটা বাটি বা বোলে নিয়ে তাতে মরিচ গুড়া, সয়াসস, লবন ও চিনি দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে/মাখিয়ে নিন।

আধা ঘন্টা রেখে ম্যারিনেট করে রাখুন। চাইলে নরমাল ফ্রীজের চেম্বারেও রেখে দিতে পারেন।

এবার শুকনো ময়দায় গড়িয়ে নরমাল ফ্রীজে মিনিট দশের জন্য রেখে দিন বা সাথে সাথে তেলে ভাঁজতে পারেন। ফ্রীজে রেখে সেট করে নিয়ে ভাজলে তেল কালো হবে না বা পুড়ে যাবার চান্স কম থাকবে।

এবার তেল গরম করে (তেল ডুবো হলেই ভাল) ভেঁজে নিন।

আগুনের আঁচ মাধ্যম থাকবে, এক পিট হয়ে গেলে অন্য পিট উল্টে দিন। যে কোন কিছু ভাঁজার সময় অতিরিক্ত সাবধানতা নিন, তেলের ছিটা যেন গায়ে না পড়ে সে দিকে লক্ষ রাখুন। প্রয়োজনে উল্টাতে দুটো খুন্তি বা বড় চামচ ব্যবহার করুন।

আগুন কম থাকলে আস্তে আস্তে করে মাংশের ভিতরটাও সিদ্ধ হয়ে যাবে। তবে চুলার ধার ছেড়ে যাবেন না। চিকেনের উপরের অংশ কেমন রাখবেন সেটা আপনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

ওয়াও! পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।

চিকেনের ভিতরটা এমন জুসিই থাকবে। স্বাদ অসাধারণ।

আপনারাই বলুন, ঘরে এমন চিকেন ফ্রাই পেলে কে না খাবে? এই চিকেন বিকেলের নাস্তায় সামান্য টমেটো সসের সাথে বা সাধারণ বেলার খাবারের সাথে পরিবেশন করা যেতে পারে, বিশেষ করে পোলাউ হলে তো কথাই নেই, সাধারণ গরম ভাতের সাথেও চলতে পারে। হা হা হা।

এবার ভিন্ন প্রসঙ্গে আসি, এই চিকেন ফ্রাই দিয়ে আরো একটা রান্না করা হয়, তা হচ্ছে ‘চিকেন সসেস এবং সাওয়ার রান্না’, আগামীতে এই চিকেন ফ্রাই দিয়েই এই রেসিপিটা আপনাদের দেখিয়ে দেব।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts