বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে ধর্ষিত দুই তরুণী : আসামিদের গ্রেফতারে আগ্রহ নেই পুলিশের

বনানীতে ধর্ষিত দুই তরুণীকে
Share Button

বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে ধর্ষিত দুই তরুণী কার্যত বন্দি হয়ে পড়েছেন। মামলা করার পর থেকে তারা পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। ধর্ষিতরা বন্দি হলেও উন্মুক্ত ঘুরে বেড়াচ্ছে অভিযুক্তরা। তাদের কেউ কেউ আবার নিজের বাসায়ও অবস্থান করছে। তারা ভাইবার-হোয়াটসঅ্যাপে সক্রিয় আছে।

নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ করছে। অথচ পুলিশ তাদের খুঁজে পাচ্ছে না। এমনকি এ মামলার আসামিরা যেন বিদেশে পালাতে না পারে সেজন্য সব বিমানবন্দরে সতর্কতা জারি করেছে পুলিশ।

মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদ বাসায় আছে এমন তথ্য দিয়েছেন তার বাবা আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ সেলিম। আসামি ধরতে পুলিশের আগ্রহ আছে কিনা এ নিয়ে এখন যথেষ্ট সন্দেহ দেখা দিয়েছে। এর আগে বনানী থানার পরিদর্শক আবদুল মতিন বলেছিলেন, সাফাতের বাসায় গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে সোমবার গভীর রাত পর্যন্ত বনানী থানার দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সাফাতের বাবা দিলদার আহমেদ সেলিম যুগান্তরকে বলেন, সাফাত বাসায়-আসা যাওয়া করছে। তার সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ আছে। তবে সকালের পর তার সঙ্গে আর যোগাযোগ হয়নি।

এদিকে ধর্ষিত দুই তরুণীর করা মামলার প্রতিবেদন দাখিলে ২১ দিন সময় পেয়েছে পুলিশ। ২৯ মে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম দেলোয়ার হোসেন প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য করেন। আসামিদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এদিকে ঘটনার সময় উপস্থিত এমন আরও দুই তরুণীকে খুঁজছে পুলিশ।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts