যে করণে পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার সামিনা মেহতাবকে ডেকেছিল বাংলাদেশ

পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার সামিনা মেহতাব

জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর ফাঁসিতে প্রতিক্রিয়া জানানোয় ঢাকায় নিযুক্ত পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনারকে ডেকে কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ।
 
অতিরিক্ত পররাষ্ট্র সচিব কামরুল আহসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 
 
সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ঢাকায় নিযুক্ত পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার সামিনা মেহতাবকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডাকা হয়েছিলো। তার নিকট প্রতিবাদলিপি হস্তান্তর করা হয়েছে। 
 
তিনি বলেন, পাকিস্তান বারবার যে কাজটি করছে, আমরা সেটির প্রতিবাদ জানিয়েছি। এরকমটা অব্যাহত থাকলে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে প্রভাব পড়বে না এমনটা বলা যাচ্ছে না। তাদের আচরণ কূটনৈতিক শিষ্টাচারের মধ্যে পড়ে না। একথাগুলো স্পস্টভাবে পাকিস্তানকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।  
 
তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কথা বলার এখতিয়ার কারো নেই। যুদ্ধাপরাধের মতো মৌলিক বিষয়ে বিশ্বের যে কোনো দেশ হস্তক্ষেপ করুক, বাংলাদেশ তা বরদাশত করবে না। 
 
গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে মীর কাসেম আলীর ফাঁসি কার্যকর করা হয়।
 
এরপরই বিবৃতি দিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
 
বিবৃতিতে মীর কাসেমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানানো হয়।
 
এতে বলা হয়েছে, ‘ত্রুটিপূর্ণ বিচারে’ ১৯৭১ এর ডিসেম্বরের আগে অপরাধ সংঘটনের অভিযোগে বাংলাদেশের প্রখ্যাত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে পাকিস্তান গভীরভাবে মর্মাহত।
 
এরআগেও মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের অন্যান্য নেতাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর একই ধরনের প্রতিক্রিয়া জানায় পাকিস্তান।
 
বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রত্যেকবারই পাকিস্তানের এমন অবস্থানের প্রতিবাদ জানিয়ে বলা হয়, দেশটি অযাচিতভাবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts