৬শতাধিক ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ আজ

৬শতাধিক ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ আজ
Share Button

দেশের ৬শতাধিক ইউনিয়নে একযোগে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। শনিবার সকাল ৮টা শুরু হওয়া এই ভোটগ্রহণ বিরতিহীনভাবে চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

ইসি সূত্র জানায়, আজ দেশের ৪৮টি জেলার ৮৭টি উপজেলার ৬১৪ ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। লক্ষ্মীপুরের রায়পুরের দুটি ইউপিতে চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত নারী সদস্য ও সাধারণ সদস্য সব পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় ওই দুই ইউপিতে ভোট হবে না।

বাকি ইউপিতে ২ হাজার ৬৭২ প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে ১৪টি রাজনৈতিক দলের মনোনয়নে ১ হাজার ৪৮৭ জন ও স্বতন্ত্রভাবে ১ হাজার ১৮৫ জন প্রার্থী হয়েছেন। মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীরা। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের উল্লেখযোগ্য অংশ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী হয়ে লড়ছেন।

এসব ইউপিতে ভোটার রয়েছেন ১ কোটি ৯ লাখ ৮০ হাজার ৩৫৫ জন। সাড়ে ছয় হাজারেরও বেশি ভোট কেন্দ্রে লক্ষাধিক ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা ও দেড় লাখের মতো আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবেন।

তৃতীয় ধাপে ৬১৪ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের মতো তৃতীয় ধাপেও ব্যাপক সহিংসতার আশংকা করছেন স্থানীয় ভোটার ও প্রার্থীরা। নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ব্যর্থতায় প্রথম দু’ধাপে সহিংসতায় ৫৮ জন নিহত হয়েছিল।

এ ধাপের নির্বাচনেও প্রভাব বিস্তার করতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে অস্ত্রবাজরা। তারা প্রকাশ্যে অস্ত্র হাতে মোটরসাইকেলে মহড়া দিচ্ছে। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীদের এলাকায় এ ধরনের ঘটনা বেশি ঘটছে। ফলে ওইসব এলাকায় বেশি আতংক বিরাজ করছে।

এসব কারণে তৃতীয় ধাপেও সুষ্ঠু ভোট গ্রহণ নিয়ে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে। তবে প্রথম দু’ধাপের তুলনায় এবার ভালো নির্বাচনের প্রত্যাশা করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এক নজরে তৃতীয় ধাপের নির্বাচন : ২৩ এপ্রিল ভোটের জন্য ৬৮৫টি ইউপির তালিকা করেছিল ইসি। প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিতে না পারায় রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানের ৫৩ ইউপি ষষ্ঠ ধাপে নেয়া হয়েছে। নানা জটিলতায় আরও এক ডজন ইউপির ভোটের তালিকা থেকে বাদ যায়। ফলে আজ ৬১৪ ইউপিতে ভোট হবে।

ইতিমধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ২৫ জন, সাধারণ সদস্য পদে ১৭৪ জন ও সংরক্ষিত সদস্য পদে ৭৯ জন নির্বাচিত হয়েছেন।
তৃতীয় ধাপের ভোটে চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থী রয়েছেন ১ হাজার ৪৮৭ জন, স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন ১ হাজার ১৮৫ জন।

এদের মধ্যে মোট ১৪টি রাজনৈতিক দলের প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামী লীগ ৬১৪ জন, বিএনপি ৫৩৯ জন, জাতীয় পার্টি ১৬৭ জন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ২৬ জন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ১২ জন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ৯২ জন, জাতীয় পার্টি-জেপি ৩ জন, খেলাফত মজলিস ২ জন, বিকল্পধারা ৩ জন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি ৫ জন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ১০ জন, ইসলামী ফ্রন্ট বাংলাদেশ ৩ জন, বাসদ ১ জন ও অন্যান্য ৪ জন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts