লুঙ্গি দীর্ঘজীবী হোক!

FB_IMG_1554987706952

 দেলাওয়ার জাহান,

লুঙ্গি মহাফেলের দরকার ছিল। এমন একটা ট্যাবু দাঁড়িয়ে গিয়েছিল ক্যাম্পাসসহ মফস্বল শহরে যে, লুঙ্গি পরে এমনকি বাসার নীচের দোকানে জরুরী সাবান সোডা কিনতেও যাওয়া যাচ্ছিল না।

অবশ্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত মহাফেলের কারণে আপনি আগামীকাল থেকে ক্যাম্পাসে রেগুলার লুঙ্গি পরে বেড়ালে কিংবা ক্লাসে লুঙ্গি পরে আসলে বাহবা পাবেন সেটাও নয়। লুঙ্গি উৎসব নাম দেয়া সার্থক হয়েছে যেহেতু উৎসব প্রতিদিন হয় না। সুতরাং ঠিক আছে।

আচ্ছা, এমন কি আমাদের হয় না যে প্যান্ট পরতে ইচ্ছে করছে না, আবার গন্তব্য এমন একটা বিশেষ জায়গায় নয় বরং হলের সেলুন বা পেপার রুম, সেখানেও নোটিশঃ লুঙ্গি পরে …ঢোকা নিষেধ। প্রশ্ন আসতে পারে, লুঙ্গি পরে ঢাকা ক্লাবেই বা যাওয়া যাবে না কেন?
এটার উত্তর অনেক রকম।

যে বা যারা শিক্ষার মাধ্যম বাংলা হয় না কেন, হাইকোর্টের রায় কেন বাংলায় হবে না বলে আবদার করেন, দেখা গেলো দুটো ইংরেজি বলেই তারা করে খাচ্ছেন। এটা বাস্তবতা। দেড়শ বছর আগের বাঙালি মুসলমান ইংরেজির বিরোধিতা করে কিছুই পায়নি সেটা আমরা ভালোই টের পাচ্ছি। পরভাষা শিক্ষা দোষের নয়, নিজেরটা অবহেলা করা, কিংবা না পারা লজ্জার। লুঙ্গি পরাও লজ্জার নয়।

আমার তো মনে হয়, কাউকে শাস্তি দিতে হলে টানা তিনদিন জিন্স পরে থাকার শাস্তি দেয়া যায়! ঘুমানোর সময় একটা লুঙ্গি না পেলে বাঙালির ঘুম হয় বলছেন? বড় পরিবার, ছোটবেলায় এমনকি ক্লাস এইট নাইনেও বড় ভাইদের সঙ্গে ঘুমাতাম, ভোরে উঠে দেখতাম লুঙ্গিখানা একদম খাটের মাথায় মাথা খুঁটে মরছে, ‘দোহায় লাগে তোর, লজ্জা দিস না!’ নাছোড় বান্দা, যাতে খুলে না যায়, লুঙ্গির মোড়ানিতে ঢিল বেঁধে রাখতাম! ‘এ বাঁধন যাবে না ছিঁড়ে’ লুঙ্গি সে গান শুনলে তো!

আনিসুল হক গদ্য কার্টুন লিখেছেন, “বিদেশীরা মনে করে, বোতাম নেই, দড়ি নেই, বেল্ট নেই, ফিতা নেই, সেফটিপিন নেই, এই আশ্চর্য জিনিস মাধ্যাকর্ষণ শক্তিকে পরাভূত করে বাংলাদেশিদের কোমরে থাকে কী করে! এটা খুলে যায় না কেন? শোয়ার পরে তা সারা রাত যথাস্থানে থাকে কী করে!”

যারা লুঙ্গি পরায় অভ্যস্ত না তারা লুঙ্গি পরলে অবশ্যই ব্যাকআপ রাখতে হবে। আজকের মহাফেলে বেশ কয়েকজনকে থ্রি কোয়ার্টারের উপরে লুঙ্গি পরতে দেখেছি। সাবাস!

অভিযোগ আছে, শহরের তরুণেরা এখন আর লুঙ্গি পরে না । দিনশেষে ঘরে ফিরে তাদের পছন্দ থ্রি কোয়াটার প্যান্ট। তাই বলে কি লুঙ্গি হারিয়ে যাবে? লুঙ্গি টিকে আছে দাপটের সাথে। বছরে ৮ কোটি পিস লুঙ্গির চাহিদা রয়েছে বাংলাদেশের বাজারে। সে অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রতি বছরে লুঙ্গির বাজারমূল্য ১৫০০ কোটি টাকা।

লুঙ্গি পরার অনেক সুবিধা, আরাম। শীতকালে কাঁথা মুড়ি দিয়া ঘুমাইছেন, কখন যে কাঁথা সরে গেছে টেরও পান নাই, আর খুব ঠান্ডাও লাগছে কাঁথাও তুলতে ইচ্ছা করছে না। এমন সময় আপনার পরনে লুঙ্গি থাকলে লুঙ্গিটারে কাঁথা হিসাবে ব্যবহার করে শীত নিবারন করতে পারবেন!

আজকাল রাস্তা ঘাটে রাহাজানি ছিনতাই বেড়ে গেছে, কোট টাই পরা লোক দেখলেই পিছু লাগে, তাই অফিস কিংবা গ্রামের বাড়ি যেখানেই যান না কেন লুঙ্গি পরে যান, গন্তব্যস্থানের কাছাকাছি কোন ভালো যায়গা দেখে প্যান্ট পরে নিন। আসার সময় একয় পন্থা অনুসরন করুন!

কপাল এবং লুঙ্গির মধ্যে মিল ও অমিল দুটোই আছে…দুটোই যে কোন সময় খুলে যেতে পারে! আবার কপাল খুললে পৌষমাস, আর লুঙ্গি খুললে সর্বনাশ!

এদিকে বছরখানেক আগেও যার নাম কেউ জানতো না, সেই লুঙ্গি এনগিডি আফ্রিকার জাতীয় ক্রিকেটার!

ফরহাদ মজহার লুঙ্গি পরে ঢাকা ক্লাবে ঢুকতে চেয়েছিলেন, তাঁকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। এর প্রতিবাদে তিনি বিপ্লবী কলাম লিখেছিলেন। তাঁর শিষ্যরা কেউ কেউ লুঙ্গি পরে সর্বত্র চলাচল করে থাকেন। ইরাকে মার্কিন হামলার প্রতিবাদে সৈয়দ আবুল মকসুদ সেলাই করা কাপড় বর্জন করেন। লুঙ্গি পরেন। সেদিন হাইকোর্টেও দেখলাম।

খৎনা করার দিন ‘লুঙ্গি-খড়ি’ হওয়ার পর সেই যে মজা পাইল বাঙালি, এরপর সে যদিও জিন্স শিখেছে, লুঙ্গির স্বাদ সে ভুলেনি।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts