রসিক নির্বাচনে সেনা মোতায়েন করতে হবে : রিজভী

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী
Share Button

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সেনা বাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দেওয়ার দাবিও জানিয়েছে তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী আরো বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনকে বলতে চাই ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীদের বিজয়ী করতে কারচুপির চেষ্টা করলে জনগণ তা প্রতিরোধ করবে। তাই অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনী পরিবেশ তৈরিতে সেনা মোতায়েন করার আহবান জানাচ্ছি।’
তিনি বলেন, ‘সরকার দলীয় লোকেরা ভোটারদের যেভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে তাতে করে রসিক নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দিহান আমরা।’

তিনি আরো বলেন, বিএনপি মনোনীত প্রার্থীকে শুরু থেকে যেভাবে হয়রানি করা হয়েছে, তাও নজিরবিহীন। আমরা আবারও নির্বাচন কমিশনকে বলতে চাই, ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীকে পেছনের দরজা দিয়ে জেতানোর কোনো চেষ্টা করলে জনগণ সেটির উপযুক্ত জবাব দেবে। সেখানে এখনো অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনী পরিবেশ করতে পারেনি ইসি।’

যুগ্ম-মহাসচিব আরও বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে ১৯৬টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৩৩টিই ঝুঁকিপূর্ণ। নির্বাচন কমিশন দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে না।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীরা নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করলেও ইসি তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। শুধু তাই নয় নির্বাচন কমিশন রংপুর সিটি নির্বাচনে এখনও অবাধ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারেনি বলেও মন্তব্য করেন বিএনপি এই নেতা।

রিজভী বলেন, ‘বেসিক ব্যাংকে দুর্নীতি ও কেলেঙ্কারির বিষয়টি জনসমক্ষে স্পষ্ট হয়ে উঠলেও ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা জড়িত থাকায় দুদক বরাবরই সেটি এড়িয়ে গেছে। বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারি নিয়ে এখন পর্যন্ত ৫৭টি মামলা হলেও মূল হোতারা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। যদিও উচ্চ আদালতের নির্দেশে এখন নতুন করে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করছে দুদক।’

রিজভী বলেন, ‘ব্যাংক লুটের লাখ লাখ কোটি টাকা দেশ থেকে পাচার হয়ে গেলেও দুদক এসব বিষয়ে নির্বিকার। কিন্তু জনগণ তাদের ক্ষমা করবে না। লুটেরাদের একদিন জনতার কাঠগড়ায় দাঁড়াতেই হবে।’

রিজভী আরো বলেন, ‘সারাদেশে নিখোঁজ, অর্থাৎ বেআইনি গুম-আতঙ্ক থামছেই না। সমাজের সকল স্তরের মানুষ আজ কেউই নিরাপদ নয়। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, ছাত্র ও সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার অনেক মানুষের আর খোঁজ মিলছে না।’

প্রসঙ্গত, আগামী চলতি বছরের ২১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবুল খায়ের ভূইয়া, আব্দুস সালাম, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, মীর সরাফত আলী সপু, আব্দুস সালাম আজাদ, আব্দুল আউয়াল খান, মুনির হোসেন, আমিনুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts