রিমান্ডে কি জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে শফিক রেহমানকে?

রিমান্ডে কি জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে শফিক রেহমানকে?
Share Button

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে ও তার আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়কে যুক্তরাষ্ট্রে অপহরণ ও হত্যা চেষ্টা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শফিক রেহমানকে। পাঁচ দিনের পুলিশি রিমান্ডে রয়েছেন তিনি। আদালতের নির্দেশে রোববার থেকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ সর্তকতার সঙ্গে কয়েকটি বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, শফিক রেহমানকে জিজ্ঞাসাবাদে তার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের জাসাস (বিএনপিপন্থি সাংস্কৃতিক সংগঠন) নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনের সম্পর্ক খোঁজা হচ্ছে। এমনকি ২০১৩ সালে তার যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়েও অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সূত্রটি আরো জানায়, গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের জাসাস নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনের ছেলে রিজভী আহমেদ সিজার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তার তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের ব্যক্তিগত তথ্য একজন বাংলাদেশি সাংবাদিককে সরবরাহ করেছিলেন এবং বিনিময়ে প্রায় ৩০ হাজার ডলার পেয়েছিলেন। এতে সহযোগিতার দায়ে এফবিআই এর সাবেক এক বিশেষ এজেন্টসহ তার কারাদণ্ড হয়। সেই সাংবাদিক শফিক রেহমান হতে পারেন বলে ধারণা তদন্ত কর্মকর্তাদের।

তবে জিজ্ঞাসাবাদ সম্পর্কে ডিবি দক্ষিণ বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাশরুকুর রহমান খালেদ সরাসরি কিছু বলতে রাজি হননি। তিনি বলেন, ‘আদালতের আদেশ ও আইনানুসারে রিমান্ডে নিয়ে শফিক রেহমানকে প্রথম দিনের মতো জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তদন্ত শেষ হওয়ার আগে বিস্তারিত বলা যাবে না।’

এর আগে গতকাল শনিবার (১৬ এপ্রিল) সাংবাদিক শফিক রেহমানকে তার নিজ বাসায় সাংবাদিক পরিচয়ে প্রবেশের পর ধরে নিয়ে যায় ডিবি পুলিশ। প্রথমে দেশদ্রোহিতার মামলায় তাকে গ্রেপ্তারের কথা জানানো হলেও পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ ও হত্যা চেষ্টায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। একই দিন আদালত তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত ‘বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা নাগরিকের’ ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ঘুষ নেয়ার দায়ের এফবিআই এর সাবেক এক এজেন্টকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন। আদালত রায়ে বাংলাদেশের ওই নাগরিকের নাম পরিচয় উল্লেখ না করলেও ধারণা করা হয় তিনি সজীব ওয়াজেদ জয়।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts