সরকারের সমালোচনায় এরশাদ

Share Button

সরকার সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা বিধানে ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ জীবনের নিরাপত্তা চায়। শান্তিতে ঘুমাতে চায়। কিন্তু এখন কে কখন খুন হবে, এ আতংকে দিন কাটছে মানুষের। কারো কোনো নিরাপত্তা নেই। সুন্দরগঞ্জের সংসদ সদস্য লিটন হত্যাকাণ্ড তার বড় উদাহরণ। আমরা বিষয়টি নিয়ে ব্যথিত। ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা প্রমাণ করে এদেশে একজন সংসদ সদস্যের জীবনেরও নিরাপত্তা নেই। যেখানে সংসদ সদস্যের নিরাপত্তা নেই, সেখানে সরকার সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা দেবে কোথা থেকে? সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা বিধানেও সরকার ব্যর্থ।
সোমবার গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ড. জেড আই চৌধুরী এগ্রিকালচার এন্ড রিসার্স ইনস্টিটিউটে বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, এখন মেয়েরা স্বাধীনভাবে স্কুলে যেতে পারছে না, শিশুরাও নিরাপদ নয়। সরকারের উচিত জনগণের নিরাপত্তা দেয়া। এমপি লিটন হত্যার ঘটনায় কোনো সাধারণ মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হয়, জনগণের যেন  কোনো ক্ষতি না হয় সে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা দরকার।

এসময় তিনি বলেন, একমাত্র পরীক্ষিত দল হিসেবে জাতীয় পার্টিই জনগণের নিরাপত্তা দিতে পারে।

এরশাদ বলেন, সুন্দরগঞ্জের এই আসনের আসন্ন উপ-নির্বাচন থেকে আমার জাতীয় পার্টির জয়যাত্রা শুরু করতে চাই। আমার শাসনামলে মহকুমাগুলোকে জেলা করেছি, থানাগুলোকে উপজেলা করেছি, দেশের ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। তবে মানুষ হত্যা করিনি। যার কারণে দেশবাসী আজও আমাকে ভালবাসে। যার প্রতিফলন ঘটবে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে।

এসময় জাপা চেয়ারম্যান তার উপদেষ্টা ও সুন্দরগঞ্জ শাখা সভাপতি শামীম হায়দার পাটোয়ারীর হাত তুলে ধরে আসন্ন উপ-নির্বাচনে তাকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন।

এরশাদ আরও বলেন, সুন্দরগঞ্জ জাপার শক্ত ঘাঁটি। এখানকার জনগণ আমার প্রত্যাশা পূরণ করবে।

জাপা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গাইবান্ধা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য শুনীল শুভ রায়, ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, মোফাজ্জল হোসেন মাষ্টার, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গাইবান্ধা জেলা সভাপতি আব্দুর রশিদ সরকার, দলের চেয়ারম্যানের আইন বিষয়ক উপদেষ্টা ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলা সভাপতি ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, জেলা জাপার সাধারণ সম্পাদক রাগিব হাসান হাবুল, লালমনিরহাট জেলা সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম মিঠু, রংপুর মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলী, উপজেলা জাপার সহ-সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক জহুরুল ইসলাম বাদশা, বর্ষিয়ান নেতা আকবার আলী দারোগা, ইঞ্জিনিয়ার এটিএম মাহবুব আলম শাহীন, বামনডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান নজমুল হুদা, আহসান হাবীব খোকন, একরামুল হক লাল মিয়া, রানা মিয়া প্রমুখ।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts