বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীর পুরস্কার পাচ্ছেন ড. মনির

বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীর পুরস্কার পাচ্ছেন ড. মনির

নাগরিক জীবনে হাঁটার সুযোগ ক্রমশই কমছে। অথচ সুস্থ থাকতে হলে সবার, বিশেষ করে বয়োজ্যেষ্ঠদের হাঁটাহাঁটির সুযোগ দরকার। আর এ বিষয় নিয়ে গবেষণা করেই বিশ্বসেরা তরুণ বিজ্ঞানীর পুরস্কার পাচ্ছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ড. মনির মনিরুজ্জামান।

প্রতি বছরই যাতায়াত ব্যবস্থা বিষয়ক গবেষণাকর্মে বিশেষ অবদানের জন্য আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘ইয়ং রিসার্চার অব দ্য ইয়ার’, অর্থাৎ বর্ষসেরা তরুণ বিজ্ঞানীর পুরস্কার দিয়ে থাকে ইন্টারন্যাশনাল ট্রান্সপোর্ট ফোরাম (আইটিএফ)। এ বছর এই পুরষ্কার পাচ্ছেন কানাডার ইউনিভার্সিটি অব টরন্টোর পোস্ট ডক্টরাল রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট ড. মনির মনিরুজ্জামান।

কানাডার আইল্যান্ড অব মন্ট্রিলে প্রবীণদের হাঁটার অভ্যাসের হার পর্যবেক্ষণ করেই মূলত গবেষণাটি করেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত তরুণ বিজ্ঞানী ড. মনির মনিরুজ্জামান। গবেষণা শেষে বয়স্কদের হাঁটার সুযোগ বাড়ানোর জন্য শহরাঞ্চলে সুপরিকল্পিত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য কিছু পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।

২০১৬ সালের ‘ইয়ং রিসার্চার অব দ্য ইয়ার’ হিসেবে ড. মনির মনিরুজ্জামানের নাম ঘোষণার পর আইটিএফ’র সেক্রেটারি জেনারেল হোসে ভিগাস বলেন, ‘(ড. মনিরুজ্জামানের) এই অভিনব কাজটির মাধ্যমে বৈজ্ঞানিকভাবে দেখানো হয়েছে যে কিছু রাস্তার পরিবেশ বয়স্ক মানুষদের জন্য বেশি আকর্ষণীয়। এমন রাস্তাঘাট থাকলে বয়োবৃদ্ধরা সমাজের সঙ্গে অনেক বেশি সম্পৃক্ত থাকতে পারেন।’

আগামী ১৯ মে জার্মানির লিপজিগ শহরে ড. মনির মনিরুজ্জামানের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেয়া হবে। বিশেষ প্রশংসাপত্রের সঙ্গে পাঁচ হাজার ইউরোর (প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকা) অর্থ পুরস্কারও দেয়া হবে তাকে।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts