এবার গোলাপি বলে হচ্ছে অ্যাশেজ!

অ্যাশেজ

আধুনিকতার ছোঁয়ায় এবার ক্রিকেটবিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীনতম লড়াই। অ্যাশেজের ৩৩০তম টেস্টে প্রথমবার গোলাপি বলে মুখোমুখি অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড।

অ্যাডিলেডে দিবারাত্রির সেই ম্যাচটি জিতে সিরিজে সমতা ফেরাতে মরিয়া ইংল্যান্ড। স্টিভেন স্মিথের অস্ট্রেলিয়া আবার ব্রিসবেনের মতোই ইংলিশদের গুঁড়িয়ে এগিয়ে যেতে চান ২-০তে। যুগের দাবিতে যতই ফ্লাডলাইটের আলোয় টেস্ট হোক, ঐতিহ্যবাহী দল দুটি আগের মতোই এক ইঞ্চি জমি ছাড়তে নারাজ একে অন্যকে।

তাতে জমে উঠেছে কথার লড়াই। ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ টেস্ট উইকেট নেওয়া বোলার জেমস অ্যান্ডারসন অস্ট্রেলিয়াকে খোঁচালেন, ‘নিপীড়ক’ বলে। অ্যান্ডারসনকে আবার স্মিথের পাল্টা, ‘তাঁর মতো স্লেজার দেখিনি আমি। ’ এই ঝাঁজটা আজ ব্যাট-বলেও থাকবে নিশ্চিতভাবে।

জনি বেয়ারস্টো, ক্যামেরন ব্যানক্রফটের ‘হেডবাট’ কাণ্ডে দুই দলের খোঁচাখুঁচি শুরু প্রথম টেস্ট থেকেই। অ্যাডিলেডেও রয়ে গেছে এর রেশ।

ম্যাচ শুরুর আগে ইংলিশ এক দৈনিকে জেমস অ্যান্ডারসন লিখেছেন, ‘অস্ট্রেলিয়ানরা নিপীড়ক। মাঠে খুব বেশি আক্রমণাত্মক থাকে ওরা। ’ এর আগে আবার স্টিভেন স্মিথের বিপক্ষে হেডবাট কাণ্ড নিয়ে ইংল্যান্ডকে বিদ্রূপ করার অভিযোগ তুলেছিলেন জো রুট। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এ নিয়ে স্মিথ জানালেন, ‘আমি অ্যান্ডারসনের কলামটা পড়েছি। ২০১০ সালে আমার ক্যারিয়ারের শুরু থেকে অ্যান্ডারসনকে স্লেজিং করতে দেখে আসছি। ওর মতো স্লেজার মনে হয়নি আর কাউকে। হেডবাট কাণ্ড নিয়ে ইংল্যান্ডকে মোটেও বিদ্রূপ করিনি। তাই আমার ওপর রাগ দেখানোর কোনো কারণ নেই জো রুটের। ওর সঙ্গে কোনো সমস্যা নেই আমার। ’

অ্যাশেজে দুই দলের উত্তপ্ত কথাবার্তা স্বাভাবিক মেনে নিয়েছেন স্মিথ। এ নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের প্রতিশ্রুতি তাঁর, ‘আমরা কঠোর ও আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলব। ওদের অনেক ভালো বোলার ও ব্যাটসম্যান আছে। সিরিজে ফিরতে মরিয়াও থাকবে। তাই আমাদের একটা দল হয়ে ভালো খেলতে হবে।

১৯ বছর বয়সে অ্যাডিলেডের অ্যাকাডেমিতে ছিলেন ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট। ড্যারেন লেহম্যানের কাছ থেকে শিখেছেন ব্যাটিংয়ের নানা দিক। সেই লেহম্যান এখন প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়ার কোচ।

এখানে খেলাটা আবেগের রুটের জন্য, ‘১৯ বছর বয়সে অ্যাডিলেডে অনেক কিছু শিখেছি লেহম্যানের কাছে। লেহম্যান এখন অস্ট্রেলিয়ার কোচ। পেশাদার ক্রিকেটে এমন পরিস্থিতির সামনে পড়াটা স্বাভাবিক। এই শহরে সব সময় উপভোগ করেছি নিজের ব্যাটিং। এই টেস্টেও সেটা করতে চাই। ’ প্রথম টেস্টে বিধ্বস্ত হলেও হাল ছাড়ছেন না রুট। এখনো সিরিজ জয়ের স্বপ্ন দেখছেন তিনি, ‘অন্য যেকোনো কিছুর চেয়ে সিরিজটা বেশি করে জিততে চাইব আমি। পরের চার টেস্ট জিতে সেটা অসম্ভব নয়। অস্ট্রেলিয়ায় অ্যাশেজ জিততে পারলে আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় অর্জন হবে সেটা। ’

অস্ট্রেলিয়ান সাবেক অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেল বলেছিলেন, ‘অ্যাডিলেড টেস্ট জিতে সিরিজে ঘুরে দাঁড়ানোর সেরা সুযোগ ইংল্যান্ডের। গোলাপি বলের অভিজ্ঞতা এগিয়ে রাখবে ওদের। ’ ইংলিশ ঘরোয়া ক্রিকেটে গোলাপি বলের প্রচলন থাকলেও দিবারাত্রির টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতায় এগিয়ে কিন্তু অস্ট্রেলিয়া। এ বছর আগস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একটি মাত্র দিবারাত্রির টেস্ট খেলেছে ইংল্যান্ড। ম্যাচটিতে ডাবল সেঞ্চুরি ছিল জো রুটের। বিপরীতে অস্ট্রেলিয়া দেশের মাটিতে খেলেছে তিনটি, জিতেছেও প্রতিটি।

আজ গোলাপি বলে অ্যাডিলেডে তৃতীয় টেস্ট তাদের। গোলাপি বলে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি উইকেটও অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক (৪২ উইকেট) ও জস হ্যাজেলউডের (৩৩)। পরিচিত ভেন্যুতে তাই এগিয়ে থেকে শুরু করবে স্টিভেন স্মিথের দল। এএফপি

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts