টাইগারদের কোচ হতে পাইবাসের দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা

রিচার্ড পাইবাসই
Share Button

গত মঙ্গলবার ঢাকায় পৌঁছে সন্ধ্যায় মিরপুরে বিপিএলের ম্যাচ দেখতে আসা রিচার্ড পাইবাস বুধবার বেলা ১১টায় আবার বোর্ডে হাজির। উদ্দেশ্য, বিসিবিতে বাংলাদেশ দলের কোচের পদে ইন্টারভিউ দেয়া। প্রায় দুপুর অবধি চলা সেই সাক্ষাতকারে বোর্ড কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি একটি প্রেজেন্টেটেশন দিয়েছেন।যার বিষয়বস্তু ছিল টাইগারদের কোচ হলে তার কি কি লক্ষ্য ও কর্ম পরিকল্পনা হবে তারই একটি নাতিদীর্ঘ উপস্থাপনা।

ওয়ানডেতে লক্ষ্য র‍্যাঙ্কিংয়ের ৭ নম্বর থেকে বাংলাদেশকে অন্তত ৫-এ তুলে আনা।টেস্টে ৯ থেকে উঠিয়ে আনতে চান ৭-এ।২০১৯ বিশ্বকাপে অন্তত সেমিফাইনালে যাওয়া এবং পেস বোলারদের নিয়ে আলাদা পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন ইংলিশ বংশোদ্ভূত এই দক্ষিণ আফ্রিকান।

পাইবাসের ইন্টারভিউ সম্পর্কে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘নিঃসন্দেহে তার উপস্থাপনা ভালো ছিল। শুধু বর্তমান নয়, সে ভবিষ্যৎ নিয়েও কথা বলেছে।১০ বছরের একটা পরিকল্পনা নিয়ে এসেছে।সংক্ষিপ্ত এবং দীর্ঘমেয়াদ—দুটিই দেখতে হবে।সামনে বিশ্বকাপ আছে।সেটাও আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ।ও যা চায়, যে রকম বলছে, এখনই হয়তো পারব না। তবে ধাপে ধাপে পরিকল্পনাগুলো কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশের জন্য ভালোই হবে।’

এদিকে বিসিবি নতুন কোচ সন্ধানের বিষয়ে বর্তমান কোচিং স্টাফ,জাতীয় দলের সব ফরম্যাটের অধিনায়ক এবং কিছু সিনিয়র প্লেয়ারদের মতামতেরও গুরুত্ব দিতে চান নাজমুল হাসান পাপন।এ তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের বর্তমান যারা কোচিং স্টাফ আছে, রিচার্ড হ্যালসাল এবং খালেদ মাহমুদ সুজন তাদের সাথে বসবো ৯ তারিখে।পাশাপাশি টিম ক্যাপ্টেন যারা আছে, সেই সাথে অন্যান্য স্টাফ আছে, ওদের নিয়ে বসে আলোচনা করবো।

পাপনের ভাষায়, ‘তামিম, মাশরাফি, সাকিবদের সাথে কথা হয়েছে।আরও অনেক প্লেয়ারদের সাথেও কথা বলেছি।একেক জনের একেক রকম মতামত থাকবেই।কিন্তু সিদ্ধান্ত নিতে হবে যেটা ভাল হয়।আমাদের সেই সিদ্ধান্তই নিতে হবে।’

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে রিচার্ড পাইবাস স্বেচ্ছায় বাংলাদেশের কোচিং ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন।যাবার সময় বিসিবির সমালোচনা করতে ছাড়েননি পাইবাস।বলেছিলেন, বিসিবিতে পেশাদারিত্বের ঘাটতি আছে।

সেটির ব্যাখ্যা অবশ্য দিয়েছেন নাজমুল, ‘সে শতভাগ নিজ থেকেই আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তার কাছে মনে হয়েছে বাংলাদেশ দল এখন ভালো করছে।দলটা একটা পর্যায়ে পৌঁছেছে।এখন যেভাবে বাংলাদেশের ক্রিকেট চলছে,শুধু সে নয়, অন্যান্য পেশাদার কোচও বিসিবির সঙ্গে কাজ করতে চায়।’পূর্ব তিক্ততার অধ্যায়টি ‘আগের বোর্ডের বিষয়’বলে এড়িয়ে গেলেন তিনি।
বোর্ড প্রধানের এমন মন্তব্য শুনে মনে হতে পারে তিনি পাইবাসে সন্তুষ্ট।

তবে ভিতরের খবর, ৯ ডিসেম্বর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আয়ারল্যান্ডের সাবেক কোচ ফিল সিমন্সের সাক্ষাৎকার এবং তার আগে আজকালের মধ্যে আরও একজনও নাকি আসতে পারেন,যাঁর নাম এখনই প্রকাশ করতে চাচ্ছেন না বিসিবি সভাপতি।এই সব পর্ব শেষ না হওয়ার আগে চূড়ান্ত কথা বলে দেবে না বোর্ড।

রিপোর্টঃ জাহিদুল ইসলাম, ঢাকা (Zahid150891@gmail.com)

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts