মাশরাফির বিধ্বংসী ব্যাটিংএ জিতলো রংপুর

মাশরাফি

চলছিল রংপুর বনাম চিটাগং এর মধ্যকার ম্যাচ। জয়ের জন্য শেষ ওভারে রংপুরের দরকার ছিল ১৪ রান। বোলার তাসকিন আহমেদ।

প্রথম বলে ২ রান। পরের বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে ব্যবধান ৬ এ নামিয়ে আনেন পেরেরা। তৃতীয় বলে রান-আউট হয়ে যান নাহিদুল। শাহরিয়ার নাফীস নেমে পরের বলে তুলে দিলেন ক্যাচ। ব্যাট হাতে উইকেটে এলেন মালিঙ্গা। পঞ্চম বলে ২ রান। শেষ বলে দরকার ৪। ওয়াইড দিয়ে বসলেন তাসকিন। বৈধ যে বলটি হলো, সেটিকে উড়িয়ে সীমানার বাইরে পাঠিয়ে দিলেন থিসারা পেরেরা।

জয়ের উল্লাসে মেতে উঠল রংপুর রাইডার্স। চিটাগং হারল ৩ উইকেটে।

১৭৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দেখেশুনে শুরু করেন রংপুরের দুই ওপেনার ক্রিস গেইল আর ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। আল আমিনের বলে বোল্ড হওয় কিউই ব্যাটসম্যান আজও বড় স্কোর করতে পারেননি। ২০ বলে করেছেন ১৫ রান। অধিনায়ক মাশরাফি ৩ নম্বরে নেমে গেইলের সঙ্গে ধুমধারাক্কা ব্যাটিংয়ে যোগ দেন। ব্যাটিং তাণ্ডবে দ্রুতই গেইলকে ছাড়িয়ে যান রংপুরের অধিনায়ক।

মাত্র ১৭ বলে ম্যাশ করে ফেললেন ৪২ রান! বাউন্ডারি হাঁকান ৪টি। ওভার বাউন্ডারি ৩টি। এর পর সানজামুলের বলে বোল্ড হন। গেইলের আউটটা নিয়ে বেশ নাটক হলো। তানবীর হায়দারের বলে সীমানার ওপর থেকে নেওয়া লুক রনচির ক্যাচ নিয়ে গবেষণা চলল অনেক্ষণ। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল সীমানা দড়িতে পা লাগেনি রনচির। ২৫ বলে ১ বাউন্ডারি ৩ ওভার বাউন্ডারিতে ৩৩ রান করে ফিরতে হয় ক্যারিবীয় দানবকে।

দ্রুত ২ উইকে হারানোর পর ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন মোহাম্মদ মিথুন আর রবি বোপারা। তবেসেই সময় আবির্ভাব ঘটে ‘বোলার’ সৌম্য সরকারের। তার বলে নাজিবুল্লাহর তালুবন্দি হন বোপারা (১১)। তবে বেশ মারাকাটারি ব্যাটিং করতে থাকেন মিথুন। জয়ের খুব কাছাকাছি গিয়ে ২৯ বলে ৪৪ রান করে রেইসের বলে বোল্ড হয়ে যান মিথুন। সংকটে পড়ে যায় রাইডার্স বাহিনী। শেষ ওভারের নাটক শেষে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ল মাশরাফি বাহিনী।

এর আগে জহুর আহমেদ চৌধুরী আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৭৬ রান তুলে চিটাগং। লুক রনচি আর সৌম্য সরকার উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দলকে। তবে দুর্ভাগ্য রনচির; সৌম্য সরকারের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে দলীয় ১৩ রানে রান-আউট হয়ে যান তিনি। রংপুর অধিনায়ক মাশরাফির বলে মালিঙ্গার তালুবন্দি হন ৮ বলে ৭ রান করা বিজয়।

ব্যাটে ভালোই ঝড় তুলেছিলেন সৌম্য। নাহিদুলের বল বোল্ড হয়ে তাকে থামতে হয় ২৬ বলে ২ চার ২ ছক্কায় ৩০ রান করে। গতকালের ‘বিধ্বংসী নায়ক’ সিকান্দার রাজা আজ ২২ রান করে রুবেল হোসেনের বলে ক্যাচ দেন। তবে মালিঙ্গাকে ছক্কা হাঁকিয়ে হাফ সেঞ্চুরি করে ৪০ বলে ৩ বাউন্ডারি আর ৪ ওভার বাউন্ডারিতে ৬৮ রানে পেরেরার শিকার হন ভ্যান জাইল। আর কেউ বলার মত রান করতে পারেননি। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৭৬ রান তোলে চিটাগং

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts