সেই জিম্বাবুয়ের কাছে হার দিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করলো লঙ্কানরা

শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ে

বলতে গেলে তীরে গিয়ে তরী ডুবল হাথুরুসিংহের শীর্ষদের। মাত্র ১২ রানের জন্য পরাজয়ের তিলক আটঁতে হয়েছে শ্রীলংকাকে। কুশাল পেরেরার পর থিসেরা পেরেরা। দুই পেরেরার পারফরম্যান্সের পরও শেষ পর্যন্ত জয় পায়নি শ্রীলংকা।

লংকানদের পরাজয় নয়। বলতে হবে জিম্বাবুয়ে নিজেদের সেরা ক্রিকেট খেলেই ম্যাচ জয় পেয়েছে। বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে হেরে যাওয়া দলটি ১২ রানে শ্রীলংকাকে হারিয়ে সিরিজে ফিরেছে।

ইনিংসের শুরুর দিকে লড়াই চালিয়ে গেছেন কুশল। আর শেষ দিকে থিসেরা। তাদের বাড়তি দায়িত্বশীলতায় একটা সময়ে দুশ্চিন্তা মুক্ত ছিলেন কোচ হাথুরুসিংহে। কিন্তু জয় থেকে ১৬ রান দূরে থাকতে থিসেরা পেরেরা আউট হয়ে গেলে লংকানদের জয়ের স্বপ্ন ভেস্তে যায়। ১২ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জিম্বাবুয়ে।

দারুণ শুরুর পরও তার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে পারেনি শ্রীলংকা। শুরুর ৫.৪ ওভারে ৪৬ রান করা দলটি এরপর এক রানের ব্যবধানে দুই উইকেট হারিয়ে কোনঠাসা হয়ে যায়। ৪ রানের সময় নতুন জীবন পাওয়া উপল থারাঙ্গা ১১ রান করে আউট হয়ে যান। এরপর উইকেটে এসে সেট হওয়ার আগেই সাজঘরে পথ ধরেন কুশাল মেন্ডিস।

৪৭ রানে দুই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যাওয়া দলকে খেলায় ফেরান ওপেনার কুশল পেরেরা। ইনিংসের শুরু থেকে অসাধারণ খেলে যাওয়া লংকান এই ওপেনার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের অষ্টম ফিফটি তুলে নিয়ে সেঞ্চুরির দিকেই যাচ্ছিলেন। তার সেই অগ্রযাত্রায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন সিকান্দার রাজা। স্পিনে কাবু হওয়ার আগে ৮৩ বলে ৮ চার ও দুই ছক্কায় ৮০ রান করে ফেরেন লংকান এই মারমুখিব্যাটসম্যান।

কুশলের বিদায়ের পরপরই মুজারাবানির শিকারে পরিনত হন অধিনায়ক অ্যাঞ্জোলো ম্যাথিউস। সাজঘরে ফেরার আগে ৬৪ বলে ৪২ রান করেন। এরপর দিনেশ চান্দিমাল লড়াইয়ের চেষ্টা করেও পারেননি। তিনি ফিরেন ৩৪ রানে। শেষ দিকে অলরাউন্ডার থিসেরা পেরেরা একাই লড়াই করে যান। যোগ্য সঙ্গী না পাওয়ায় দলকে পরাজয় থেকে মুক্তি দিতে পারেননি পেরেরা। চাতারা-জারভিস-ক্রেমারদের নিয়ন্ত্রণ বোলিংয়ে ২৭৮ রানে অলআউট হয়ে যায় শ্রীলংকা।

বুধবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে হেরে আগে ব্যাটিং করে জিম্বাবুয়ে। উদ্বোধনীতে ৭৫ রানের জুটি গড়ে দলকে বড় ইনিংস গড়ার আভাস দেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। জিম্বাবুয়ের এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের ৭৩ এবং শেষ দিকে আক্রমণাত্নকভঙ্গিতে খেলা সেকান্দার রাজার ৬৭ বলের অপরাজিত ৮১ রানে ভর করে ২৯০ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে জিম্বাবুয়ে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর জিম্বাবুয়ে : ৫০ ওভারে ২৯০/৬ রান (সেকান্দার রাজা ৮১* মাসাকাদজা ৭৩, টেইলর ৩৮; গুনারত্নে ৩/৩৭)। শ্রীলংকা : ৪৮.১ ওভারে ২৭৮/১০ (কুশল পেরেরা ৮০, থিসেরা পেরেরা ৬৪, ম্যাথিউস ৪২, চান্দিমাল ৩৪; চাতারা ৪/৩৩)। ফল : জিম্বাবুয়ে ১২ রানে জয়ী।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts