আইপিএল ফাইনালের দুই দলের সম্ভাব্য একাদশ

কোহলি না ওয়ার্নার কে জিতবে আইপিএল?
Share Button

টি২০ বিশ্বকাপের পরপরই শুরু হয়েছিল। প্রায় দুই মাস ধরে চলা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) যবনিকা হতে চলেছে সুপার সানডেতে। এদিনই বেঙ্গালুরুর এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে হবে ফাইনাল। স্বাগতিক রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর প্রতিপক্ষ সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। বাংলাদেশ সময় ম্যাচটি শুরু হবে রাত সাড়ে আটটায়।

আইপিএলে বড় দুর্ভাগা এক দলের নাম বেঙ্গালুরু। তারা ২০০৯ ও ২০১১ এর দুটি আইপিএলের ফাইনাল খেলার পরও চ্যাম্পিয়নের মালা গলায় পড়তে পারেনি। এবার নিশ্চয় বেঙ্গালুরু চাইবে পুরনো হিসাব চুকিয়ে নিতে! এখানে প্রতিশোধের ব্যাপারও থাকছে। ২০০৯ সালে বেঙ্গালুরুকে ফাইনালে ট্রফি বিসর্জন দিতে হয়েছিল এই হায়দরাবাদের কাছেই। তখন দলটির নাম ছিল ডেকান চার্জার্স হায়দরাবাদ। ২০১১ সালে বেঙ্গালুরুকে ফাইনালে কাঁদিয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস। দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিত ২০০৯ আইপিএল বিজয়ের পর আর কখনো ফাইনালেই উঠতে পারেনি হায়দরাবাদ। এবার তাদেরও সামনে সুযোগ থাকছে দ্বিতীয়বার ট্রফি ঘরে তোলার।

ফাইনালের আগে কোন দল ফেবারিট তা এক আধটু আলোচনা হয়ই। বেঙ্গালুরু না হায়দরাবাদ? ক্রিকেট পণ্ডিতরা থেকে শুরু করে পাড়ার ছেলেরা সবাই একমত হবেন যে বেঙ্গালুরুই ফেবারিট। এবারের আইপিএলে বেঙ্গালুরু অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও এবি ডি ভিলিয়ার্সের খেলা দেখে অনেকে তো বলেই দিয়েছেন এ যেন লিওনেল মেসি এবং ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর এক দলের হয়ে খেলা। আবার কেউ বলছেন বিরাট ব্যাটসম্যান আর ডি ভিলিয়ার্স সুপারম্যান।

গত আট ম্যাচের সাতটি বেঙ্গালুরু যেভাবে জিতেছে তাতে বিরাট-এবিকে নিয়ে এরকম বাক্য ব্যবহার করা অযাচিত মনে হওয়ার কোন কারণ নেই। ফাইনালে ৮১ রান করতে পারলে এক আইপিএলে এক হাজার রানের গর্বিত মালিক হবেন বিরাট। শুধু কি তাই, এক আইপিএলে কবেই বা চার সেঞ্চুরি দেখা গেছে! যেটা এরইমাঝে বিরাট করে দেখিয়েছেন। তুঙ্গস্পর্শী ফর্ম বলতে যা বোঝায় বেঙ্গালুরু নেতা সেটাই এখন করছেন।

ঘরের মাঠ হওয়ায় বেঙ্গালুরু যে বাড়তি সুবিধা পাবে সেটা না বললেও হয়। পক্ষান্তরে এলিমিনেটর ও দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার দুটি ম্যাচই হায়দরাবাদ খেলেছে দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায়। দিল্লি এবং বেঙ্গালুরুর কন্ডিশনে কিছু পার্থক্য তো থাকবেই। তারপর ম্যাচ খেলেই ওয়ার্নারদের সদলবলে রওনা হতে হয়েছে বেঙ্গালুরুর উদ্দেশ্যে। অন্যদিকে প্রথম কোয়ালিফায়ার জিতে বিরাটরা বিশ্রাম নিয়ে চনমনে হয়েই ফাইনালে নামবেন। দর্শকও থাকবে তাদের পক্ষে।

তাই ওয়ার্নারকে ট্রফি হাতে নিতে হলে অসাধ্য সাধন করতে হবে। হায়দরাবাদের বড় সমস্যা তাদের ব্যাটিং লাইন আপ। এক ওয়ার্নার ছাড়া কেউই সেভাবে ধারাবাহিকতা দেখাতে পারেননি। মাঝে শিখর ধাওয়ান নিয়মিত রান পেলেও শেষের কয়েকটি ম্যাচে সেভাবে পারফর্ম করতে ব্যর্থ হয়েছেন। যুবরাজ এক ম্যাচ ভালো খেলেন তো পরের ম্যাচে নেই!

তাহলে হায়দরাবাদ ফাইনালে এলো কিভাবে? উত্তর বোলিং। ওয়ার্নারের ব্যাটিং আর আশিষ নেহরা, ভুবনেশ্বর কুমার, মুস্তাফিজুর রহমান, বারিন্দ্রর স্রান, হেনরিকসদের বোলিংয়ের কল্যাণেই আজ ফাইনালে হায়দরাবাদ। সেই বোলিংয়েও সমস্যা দেখা দিয়েছে। চোটে পড়ায় আগেই নেহরাকে হারিয়েছে হায়দরাবাদ। হ্যামস্ট্রংয়ের চোটে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার মিস করেছেন মুস্তাফিজ। এখন তিনি ফাইনাল খেলতে পারবেন কি না তা নিয়েও সংশয় রয়েছে।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু (সম্ভাব্য) একাদশ:

ক্রিস গেইল, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), এবি ডি ভিলিয়ার্স, লোকেশ রাহুল, শেন ওয়াটসন, স্টুয়ার্ট বিনি, শচীন বেবি, ক্রিস জর্ডান, ইকবাল আব্দুল্লাহ, এস অরবিন্দ, যুবেন্দ্র চাহাল।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ (সম্ভাব্য) একাদশ:

ডেভিড ওয়ার্নার (অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, মোজেস হেনরিকুইস, যুবরাজ সিং, দীপক হুদা, বেন কাটিং, নোমান ওঝা, ভুবনেশ্বর কুমার, বিপুল শর্মা, বারিন্দ্রর স্রান, ট্রেন্ট বোল্ট/মুস্তাফিজুর রহমান।

 

লেখাটি পছন্দ হলে প্লিজ Share করুন

এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ :

Related posts